অদূর ভবিষ্যতে মানুষের মুখ দিয়েও ঝরে পড়বে সাপের বিষ, আজব দাবি একদল গবেষকদের

সত্যিই সেই পুরনো এক কথাই যেন সত্যি হতে চলেছে আগামীতে, পৃথিবীর সমস্ত প্রাণীর মধ্যে মানুষই যে সবথেকে বেশি বিষধর সেটা আজ প্রমাণ করল বিজ্ঞানীরাই। আমরা সকলেই সত্যজিৎ রায়ের লেখা খগম গল্প পড়েছি, আর সেখানে একজন মানুষের সাপ হয়ে যাওয়ার অদ্ভুত গল্প শুনেছি। এতদিন পর্যন্ত সেটা গল্প হলেও শেষ পর্যন্ত এটাই বাস্তবে পরিণত হতে চলেছে, এমনটাই জানিয়েছে বিজ্ঞানীরা। গবেষণায় ধরা পড়েছে আগামীতে সাপের থেকেও বেশি বিষ পাওয়া যাবে মানুষের মুখেই।

এই নিয়ে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন ওকিনাওয়া ইন্সটিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি গ্র্যাজুয়েট ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। মোটকথা বিজ্ঞানীরা বলেছেন,সরীসৃপ দের জিনগত পরিবর্তনের কারণেই তারা বিষ প্রস্তুত করতে সক্ষম। সরীসৃপ প্রাণীর মতো মানুষের মধ্যে জিনগত পরিবর্তনের ফলে তারাও ভবিষ্যতে বিষ প্রস্তুত করতে পারবে নিজেদের মধ্যে।

এটি কোন ধারণা নয় বিজ্ঞানীরা একেবারে পিট ভাইপার সাপ নিয়ে গবেষণা করেছেন, আর সেখানেই তারা প্রমাণ পেয়েছে,এই সাপের মধ্যে যে বিষ গ্রন্থি রয়েছে তা স্তন্যপায়ী প্রাণীর লালা গ্রন্থির মধ্যে আণবিক যোগ রয়েছে। মোটকথা সরীসৃপের তৈরি বিষ কয়েকটি প্রোটিন এর সমন্বয় ছাড়া আর কিছুই নয়। সাপ মাকড়সা বিচ্ছে জেলিফিশ সবার মধ্যেই বিষ লুকিয়ে রয়েছে। তবে কিছু কিছু স্তন্যপায়ী প্রাণীর মধ্যেও এই বিষ গ্রন্থি রয়েছে যা অনেকটাই স্বাভাবিক।

বিজ্ঞানীরা প্রথম গবেষণায় জেনেছে প্রতি এর সমন্বয়ে তৈরি হয় বিষ এর পরে আরও জানা গেছে এটি আসলে একটি জিনগত পরিবর্তন।তবে বিজ্ঞানীরা আবার এটাও জানিয়েছেন শুধুমাত্র জিনগত পরিবর্তন নয় এর সাথে রয়েছে পরিবেশের মেলবন্ধন। তাই তারা বলেছেন সমস্ত কিছু স্বাভাবিক থাকলে এবং জিনের পরিবর্তন হলে হয়তো হাজার বছর পরে ইঁদুরের মুখ দিয়েও বিষাক্ত সাপের মতো বিষ বের হবে।