প্রধানমন্ত্রীর বার্তায় আলোচনায় বসতে রাজি কৃষক সংগঠন গুলো, মিলতে পারে সমাধান সূত্র

কেন্দ্রের প্রণীত বিতর্কিত কৃষি আইন নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি বিক্ষোভরত কৃষক সংগঠনগুলি। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবের পর কিছুটা হলেও সুর নরম করে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবেই সায় দিয়েছেন কৃষক আন্দোলনের নেতারা। কৃষি আইন নিয়ে বিতর্কের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী কৃষকদের আরও একবার স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, ১৮ মাস কৃষি আইন স্থগিত করার প্রস্তাব এখনও আলোচনার টেবিলেই রয়েছে।

অর্থাৎ কৃষি আইন সাময়িকভাবে স্থগিত করা সংক্রান্ত কেন্দ্রের এই প্রস্তাব কৃষকেরা এখনো বিবেচনা করে দেখতে পারেন, এমনই প্রস্তাব রেখেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এভাবে কার্যত বিতর্কের পেক্ষাপটে আলোচনায় বসার ভার কৃষকদের উপরেই ছেড়েছিলেন তিনি। ফলে কৃষক সংগঠনগুলিও এই প্রস্তাব এড়িয়ে যেতে পারেনি।

তবে কেন্দ্রের সঙ্গে ফের আলোচনায় বসতে রাজি হলেও কৃষকরা স্পষ্ট করে দিয়েছেন, কৃষি আইন বাতিল ছাড়া তারা তাদের আন্দোলনের পথ থেকে সরবেন না। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য, কৃষি আইন বাতিল করা ছাড়া আর কোনো প্রস্তাব থাকলে কেন্দ্রের কাছে পেশ করতে পারেন কৃষকরা। তিনি এও জানিয়েছেন, বিতর্কের এই প্রেক্ষাপটে কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমারের সঙ্গে যেকোনো মুহূর্তে যোগাযোগ করতে পারেন কৃষকরা।

শনিবার একটি সর্বদলীয় বৈঠকে অংশগ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রী বিরোধী শিবির গুলিকে বিতর্কিত কৃষি আইন নিয়ে আশ্বস্ত করার প্রচেষ্টা করেন। তবে কৃষকরা এখনো তাদের দাবিতে অনড়। এদিকে দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলনকারীদের উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ তুলছে কৃষক সংগঠনগুলি। অভিযোগ উঠছে বিজেপি সমর্থকদের উপরেও। বিজেপি সমর্থকরা আন্দোলন কারীদের উপর হামলা চালাচ্ছেন, এমন চাঞ্চল্যকর অভিযোগও উঠছে।