বাংলায় মদের জোয়ারে ভাসলো অনলাইন, স্থগিত রাখা হলো অর্ডার

করোনা মোকাবিলার জন্য গোটা দেশ জুড়ে লকডাউন চলছে। ১৭ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। লকডাউনের মাঝেই সোমবার থেকে খুলে গিয়েছে মদের দোকান। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজ্যে মদ বিক্রি হয়েছে ১১০ কোটি টাকার। তারমধ্যে রাজ্যের লাভ ৭০ কোটি টাকা। মদের দোকানে ভিড় জমছিল বলে সামাজিক দূরত্বের কথা ভেবে অনলাইনে মদ কেনার ব্যবস্থা করেছিল রাজ্য সরকার। ‘ই-রিটেল’ নামে মোবাইল অ্যাপ চালু করার পরেই ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মদ কেনার জন্য ১১ হাজার মানুষ বরাত দিয়েছেন। এই বরাতের মূল্য তিন কোটি টাকা।

আবগারি দফতর অসংখ্য বাড়িতে মদ পৌঁছে দিতে অপারগ। তাই আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে ই-রিটেল। ১১ হাজার মদ্যপায়ীর বাড়িতে মদ পৌঁছে দেওয়ার ফের চালু হবে ই-রিটেল। আবগারি দফতর জানাচ্ছে, প্রতিদিন গড়ে ৫ লক্ষ লিটার মদ বিক্রি হচ্ছে। প্রায় আড়াই হাজার দোকানে দিনে ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকার মদ বিক্রি হচ্ছে।

আবগারি দফতরের কর্তারা জানাচ্ছেন, মদের বিক্রি নিয়ে যতটা হইচই চলছে, ততটা রোজগার হচ্ছে না। রোজ গড়ে যে-পরিমাণ মদ বিক্রি হয়, এখন তার মাত্র এক-তৃতীয়াংশ মদ বিক্রি হচ্ছে। আবগারি কর্তারা জানাচ্ছেন, ই-রিটেল অ্যাপে এতটা সাড়া পাওয়া যাবে, সেটা আন্দাজ করা যায়নি।

কলকাতা এবং আশপাশের এলাকার দোকানগুলিতে দিনে ৪০০ থেকে ৫০০ বোতলের বরাত এসেছে। কলকাতায় একটি বৃহৎ বিভাগীয় বিপণিতে মদ রাখা হয়। ওই বিপণির এক একটি দোকানে দিনে আড়াই হাজারেরও বেশি মদের বরাত এসেছে। তারা আবগারি দফতরকে বলেছে, নিত্যপ্রয়োজনীয় হরেক জিনিসপত্রের জোগান দেওয়ার পর, তাদের পক্ষে এত মদ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া খুবই সমস্যার। তাই বাড়িতে মদ পৌঁছে দিতে কিছুটা সময় চেয়েছে বিভাগীয় বিপণি।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন