অসম্ভব সুন্দর কিন্তু বিষাক্ত, এক ছোবলেই ছবি, নীল চেহারায় পিট ভাইপারে মজে নেট বিশ্ব

ভাইপার, যাকে বিষধর সাপের মধ্যে অন্যতম মনে করা হয়। যে যে কোন প্রাণীকে বারবার আঘাত করে মৃত্যু পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারে। আজ সেই প্রজাতির একটি সাপের অপূর্ব সৌন্দর্যের মহিত হয়েছে সারা বিশ্ব। নীল ভাইপার এর একটি ভিডিও এখন ইন্টারনেটে ভাইরাল। লাল গোলাপের উপর কি স্নিগ্ধ ভাবে শুয়ে রয়েছে এই নীল সাপ টি। মখমলের মত যেন তার শরীর। একবার দেখলেই চোখ ফেরানো অসম্ভব। মস্কোর একটি চিড়িয়াখানায় লাল ফুলের সঙ্গে জড়াজড়ি করে নিল সাপের এই যুগলবন্দি সকলের মন কেড়েছে। তবে সৌন্দর্যের আলোয় যে ভয়ঙ্কর রূপ রয়েছে তা ভুলে যায়নি কেউ।

ব্লু পিট ভাইপার কিন্তু কোনোভাবেই শান্তশিষ্ট প্রাণী নয়, এর মত বিষাক্ত প্রাণী খুব কম হয়। কোনোভাবেই এর সৌন্দর্য্যে ভুলে গিয়ে সামনে গেলেই খেতে হবে মারাত্মক ছোবল। শান্ত দেখতে এই প্রাণী কখন যে প্রাণ ঘাতের কারণ হয়ে যাবে তা ধরতে পারবেন না।তাই দূর থেকেই এর সৌন্দর্য বিশেষণ করাই ভালো। এই সাপটি নিয়ে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বলেছেন, এই জাতের সরীসৃপটি মূলত হোয়াইট লিফট ভাইপার শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত। এদের আসল বাসস্থান ইন্দোনেশিয়ায়। নীল রং ছাড়া এদের রং সবুজ হয়। মস্ত চিড়িয়াখানা জেনারেল দিরেক্টর জানিয়েছেন যে, এই ধরনের নীল ছাপাবার সবুজ ছানাদের জন্ম দিতে পারে।

চিড়িয়াখানা তে এমন একটি নীল ভাইপার দম্পতি একবার সবুজ ছানার জন্ম দিয়েছিল।সর্ব বিশেষজ্ঞরা এই জাতের সাপ সম্পর্কে বলেছেন, পেট ভাইপার দের বিষ খুবই মারাত্মক। একবার যদি কোনভাবে এর বিষ শরীরে ঢুকে যায়, তাহলে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে বিষ। শরীরের ভেতরে এবং বাইরে অস্বাভাবিক ভাবে রক্তক্ষরণ শুরু হয়ে যায়। তখন হাজার চেষ্টা করেও তাকে বাঁচানো যায় না।

ইন্দোনেশিয়ার সুন্দা আইল্যান্ডে নীল এবং সবুজ ভিট পাইপার পাওয়া যায় প্রচুর। নীল ছাড়া, সবুজ এবং হলুদ রঙের পাওয়া যায় এই সাপটিকে। এদেরকে বলা হয় হেমোরেজিক ভেনোম।একবার এই বিষ মাংস ছিঁড়ে ঢুকে পড়ে এবং শুরুতেই প্রচন্ড যন্ত্রণায় কাতর হয়ে যায় আক্রান্ত। ধীরে ধীরে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে বিষ। আক্রান্তের ছোবলের জায়গা থেকে শুরু করে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ অকেজো হতে শুরু করে দেয়। আভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণের ফলে মারা যায় আক্রান্ত।এই সরীসৃপ দের মাথায় হিট সেন্সিং অর্গান থাকে।গিরগিটি, ইঁদুর ছোটখাটো স্তন্যপায়ী প্রাণী পাখি এই সমস্ত শিকার করতে পছন্দ করে এটি।