বিজনেস পার্টনারের এইসব গুণ থাকলে ব্যবসা লাটে উঠতে সময় লাগে না, জেনে নিন

কর্ম ক্ষেত্রে একাধিক কর্মকর্তাদের এমন কিছু বৈশিষ্ট্য থাকা উচিত যাতে তাদের কাছে যারা কর্মী হিসেবে নিয়োগ হন, তারা অনেক স্বচ্ছন্দে কাজটি করতে পারেন। তবে সব সময় পরিস্থিতি সমান থাকে না। অনেক সময় পরিস্থিতি ব্যবস্থাপকদের কঠোর এবং বদমেজাজি করে তুলতে পারে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে গেলেও তাদের মত তিক্ত সম্পর্ক আর আগের মতো মধুর হয় না। আর এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাদের জানাবো যে কিভাবে কর্মকর্তারা তাদের কর্মীদের সঙ্গে সদ্ব্যবহার রাখতে পারবেন।

সবজান্তা কর্মী যার কাম্য: অধীনস্থ কর্মী কাজ শেখার জন্যই আপনার কাছে আসে। আপনার থেকে অবশেষে কম জানে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ছেড়ে একেবারে কিছু জানিনা সেটা ভাবা আপনার বোকামি হবে। যদি আপনি ভেবে নেন যে আপনার কর্মীরা সব কিছুই পারবে, আর না পারলেই তাকে আপনি অযোগ্য বলে ছোট করবেন তাহলে কর্মকর্তা হিসেবে আপনার যোগ্যতা প্রশ্নের মুখে পড়ে যেতে পারে। যোগ্যতা বুঝে সমস্যার সমাধান করতে হবে আপনাকেই।

নতুনত্বে অনীহা: আপনি এতদিন ধরে যে পদ্ধতি অবলম্বন করে আসছেন, শুধুমাত্র সেটি কি ঠিক হবে তার কোনো মানে নেই। আপনার অধীনস্থ কর্মচারী অনেক সময় আপনার থেকে আলাদা পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারে। এক্ষেত্রে নতুন পদ্ধতি কে আহবান জানান, আপনি ঠিক এই কথা সরিয়ে দেখে নতুনত্ব কে বোঝার চেষ্টা করতে হবে আপনাকে।

কর্ম ক্ষেত্রে আপনি সর্বেসর্বা: আপনি দলের নেতা, শিখেছে সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা আছে আপনার। কিন্তু নেতাসুলভ গুরুগম্ভীর ব্যবহার ছাড়াও যদি অহংকার থাকে আপনার মধ্যে, তাহলে তা মেনে নেওয়া কঠিন হবে আপনার কর্মীদের পক্ষে। তাই কর্ম কর্তা হিসেবে আপনাকে মেনে নিতে হবে যে, আপনার চাইতেও অনেক ভাল হয়ে যেতে পারে একসময়।

আবেগের স্থান নেই: কর্মক্ষেত্রে সকলেই কাজ সামলাতে আসেন। ব্যক্তিগত এবং কর্মজীবন আলাদা হলেও মাঝে মাঝে ব্যক্তিজীবনের স্থান প্রভাব পড়ে যায় কর্মক্ষেত্রে। অনেক সময় দুশ্চিন্তা অথবা খারাপ সময়ের মধ্যে গেলে মানুষ ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। এই সময়ে কর্মীদের পাশে আপনাকে দাঁড়াতে হবে। বুঝতে হবে তাদের মনের কষ্ট। কাজের পাশাপাশি আবেগকে সমানভাবে স্থান দিতে হবে।

কর্মীদের মাঝে কেউ আপনার প্রিয়: সবক্ষেত্রেই কেউ না কেউ কারো না কারোর প্রিয় হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আপনি তাকেই গুরুত্ব দেবেন আর অন্য কাউকে গুরুত্ব দেবেন না এমন কিন্তু আশানুরূপ কথা নয়। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবার আগে সবার মত নেওয়া দরকার আপনার।

দোষ খুঁজা: আপনিও যখন মানুষ আপনার কর্মীরাও তখন মানুষ। একটা যন্ত্রের মত কেউ কাজ করতে পারে না। অনেক সময় মানুষ মাত্রই ভুল হয়। এই সময়ে কর্মীদের শাসন না করলে তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করুন দেখবেন তারাই তাদের ভুল ঠিক করে নিয়েছে।