বেড খালি থাকলে ক’রোনা রোগীকে ফেরাতে পারবে না হাসপাতাল, কড়া নির্দেশ হাইকোর্টের

করোনা পরিস্থিতিতে নাজেহাল অবস্থা রাজ্যবাসীর। আক্রান্ত হলে হাসপাতালগুলিতে বেড পাওয়া রীতিমতো চ্যালেঞ্জের ব্যাপার। তবে রোগীর পরিবারের তরফ থেকে বহুবার অভিযোগ করা হয়েছে, হাসপাতালের বেড থাকা সত্ত্বেও রোগী ভর্তি নেওয়া হচ্ছে না। এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হোন বেশ কিছু রোগীর পরিবার। সেই মামলার শুনানিতে হাইকোর্টের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হল, হাসপাতালের বেড খালি থাকলে, করোনা রোগীকে ফেরানো যাবে না।

পাশাপাশি, কলকাতা হাইকোর্টের তরফ থেকে বুধবার এই জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে জানানো হয়েছে, হাসপাতালের বিরুদ্ধে এই ধরনের কোনো অভিযোগের প্রত্যক্ষ প্রমাণ থাকলে পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কমিশনে অভিযোগ জানাতে পারবেন অভিযোগকারী। এদিনের শুনানিতে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টি বি এন রাধাকৃষ্ণণ এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চের তরফ থেকে রায় দানের সময় বলা হয়েছে, যে কোনো সরকারি বা বেসরকারি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের প্রাথমিক কর্তব্য হলো রোগীকে চিকিৎসা পরিষেবা প্রদান করা।

পাশাপাশি, হাসপাতালে বেড থাকুক বা না থাকুক, বৈধ কারণ ছাড়া রোগীকে ফিরিয়ে দেওয়ার অর্থ মৌলিক দায়িত্ব লংঘন করা, বলেই জানিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ। উল্লেখ্য, হাইকোর্টে আবেদনকারী রোগীর পরিবারের তরফ থেকে অভিযোগ করে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে রাজ্যে সরকারি এবং বেসরকারি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান গুলিতে করোনা রোগীদের জন্য কটি করে বেড বরাদ্দ রয়েছে এবং তার মধ্যে কতগুলি ফাঁকা রয়েছে, তা জানার কোনো উপায় নেই।

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি আইনজীবীর বক্তব্য, রাজ্য সরকারের নিজস্ব ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য ডেটাবেস আকারে দেওয়া হয়েছে। সেখানে যেমন করোনা রোগীদের জন্য বরাদ্দ বেডের ব্যাপারে জানতে পারবেন রাজ্যবাসী, হাসপাতালে কত জন রোগী ভর্তি রয়েছেন, এবং কতজন সুস্থ হয়ে ছাড়া পেয়েছেন সেই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য দেওয়া রয়েছে। তবে সরকারি আইনজীবীর দাবি অনুযায়ী, সরকারি হাসপাতালগুলিতে করোনা রোগীকে ফিরিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনায় এপর্যন্ত ঘটেনি।