ঋণ নিয়ে কিনেছিলাম রিকশা, ভেঙে গুঁড়িয়ে দিলো ওরা

হঠাৎ করে বাংলাদেশের বিভিন্ন রাজ্য জুড়ে শুরু হল এটি নিষেধাজ্ঞা আইন। সে নিষেধাজ্ঞা আইন মেনে গরিব মানুষের লাথি মেরে চলে অভিযান। তিল তিল করে টাকা জমানোর পর রিক্সা কিনতে পারে একজন গরীব মানুষ। সেই সঞ্চিত টাকায় কেনা একটি রিকশা নিয়ে গেল বাংলাদেশের জিগাতলা ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের লোকেরা।

হঠাৎ করে এই রকম একটি দুর্যোগ নেমে চলে আসবে তাদের জীবনে কখনই তারা ভাবতে পারেনি। কাউকে আটকানোর ক্ষমতা নেই তাদের। শুধুমাত্র কান্নায় ভেঙে পড়া ছাড়া আর কোনো রাস্তা নেই তাদের। রোজগারের একমাত্র পথ হারিয়ে ফেললেন বাংলাদেশের রিক্সাওয়ালা।একরাশ ঋণের বোঝা নিয়ে কি করবেন বুঝতে পারেন না তারা। শুধুমাত্র তাদের মুখে শোনা যায় আত্মহত্যার কথা। তাদের মধ্যে একজন ফজলুর রহমান।

সোমবার জিগাতলা ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ব্যাটারিচালিত রিকশা উচ্ছেদ অভিযানে তার রিকশাটিকে তুলে নিয়ে চলে যাওয়া হয়।হাজারীবাগ এলাকার বাসিন্দা ফজলুর রহমান জানান যে, তার জীবনের সমস্ত আশা-আকাঙ্ক্ষা এবার বোধয় শেষ হয়ে গেল। দীর্ঘ লকডাউনের পর কাজ হারিয়ে কার্যত ঘর বন্দী হয়েছিলেন তিনি।মাত্র ১৫ দিন আগে ৮০ হাজার টাকা ধার দেনা করে অবশেষে ব্যাটারিচালিত রিকশা কিনতে পেরেছিলেন তিনি, কিন্তু এইভাবে চোখের সামনে তার সমস্ত আশা যে এভাবে শেষ হয়ে যাবে তা কোনোদিন ভাবতে পারিনি তিনি। সাধারণ মানুষ তিনি। তাই চোখের সামনে সবকিছু দেখে চোখের জল ফেলা ছাড়া আর কোন উপায় নেই তার।তাই শুধুমাত্র আত্মহত্যা করার কথাই বলতে হচ্ছে তাকে।অদূর ভবিষ্যতে কি হবে তাদের মতো আরও অনেক সাধারণ মানুষের তা বলা যাচ্ছে না।