প্রায় ৭ ঘন্টা ধরে অনবরত ভাঙ্গন, গঙ্গার জলে ভেসে গেলো শয়ে শয়ে বাড়ি, হাহাকার মালদা জুড়ে

সকাল থেকে গঙ্গায় ভাঙন বীরনগরে। গঙ্গার গর্ভে চলে গিয়েছে প্রায় ১০০ ঘরবাড়ি। নদীতে তলিয়ে গিয়েছে প্রচুর জমি, বাঁশঝাড়, বিদ্যুতের খুঁটি, গাছপালা। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এদিন সকাল ৬ টা নাগাদ ভয়াবহ ভাঙন শুরু হয়। একটানা ৬ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে স্থায়ী হয় ভাঙন। চোখের সামনে একের পর এক পরিবার ভিটেমাটি হারান। অনেকে মূল্যবান সামগ্রী পর্যন্ত সরানোর সুযোগ পাননি। ভাঙনের তীব্রতা এতটাই বেশি ছিল যে, দোতলা পাকা বাড়ি পর্যন্ত নদীতে তলিয়ে গিয়েছে। বড় বাঁশ ঝাড় ধসে গিয়ে পড়ে নদীর গভীরে।

বীরনগর থেকে রাজনগর যাওয়ার গ্রামীণ রাস্তাতেও গঙ্গায় ভাঙন হয়। ভাঙনে ওই রাস্তার বেশ কিছু এলাকা নদীগর্ভে চলে গিয়েছে। রাস্তার পাশে কয়েকটি বিদ্যুতের খুঁটি নদীতে ভেঙ্গে পড়ে।আহত হয়েছেন স্থানীয় বীরনগর গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য হারুন রশিদ। বাড়িঘর ভেঙে সরিয়ে নিতে বাধ্য হন পঞ্চায়েত সদস্য-সহ গ্রামের অনেক পরিবার। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য জানিয়েছেন, এদিন নদী লোকালয়ের দিকে প্রায় ২০০ মিটারের বেশি ঢুকে পড়ে।

আবার যে কোন মুহূর্তে ভাঙন শুরু হতে পারে এই আশঙ্কায় বিকেল পর্যন্ত নদীপারের বাসিন্দাদের মধ্যে বাড়িঘর ভেঙে সরানোর তৎপরতা চোখে পড়ে। কালিয়াচক -৩ ব্লকের বিডিও গৌতম দত্ত বলেছেন, এদিনের ভাঙনের তীব্রতা ছিল আগের অন্যান্য ভাঙনের তুলনায় অনেকটাই বেশি। বেশকিছু আধভাঙা বাড়ি নদীগর্ভে চলে গিয়েছে। পাশাপাশি নতুন বেশকিছু বাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে, খতিয়ে দেখার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।