দুর্গা পুজোর গান রেকর্ড করে তা লতা মঙ্গেশকরকে পাঠিয়েছেন হেমামালিনী, তারপর

একদিকে ড্রিম গার্ল হেমামালিনী’, অপরদিকে সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর, অভিনয় এবং সঙ্গীতের এক অসাধারণ মেলবন্ধন। তবে এই দুজনের মধ্যে একটি অদ্ভুত যোগসূত্র রয়েছে। সঙ্গীত সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকরের জন্মের পর তার নাম রাখা হয়েছিল হেমা, পরে সেই নাম পাল্টে দিনোনাথ মঙ্গেশকর নিজের নাটকের প্রিয় চরিত্রের আদলে তার মেয়ের নাম রেখেছিলেন লতা। নিজেদের নাম এক থাকার কারণে, অভিনেত্রী এবং সঙ্গীত সম্রাজ্ঞীর মধ্যে এটি অভিন্ন সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সে কারণেই প্রথমবার দুর্গা পূজার গান রেকর্ড করে লতা মঙ্গেশকার কে পাঠিয়ে দিয়েছিল হেমা মালিনী।

তখন ১৯৪৭ সাল। হাত কি সাফাই, সিনেমাতে প্রথমবার গান গেয়েছিলেন হেমা মালিনী। সেই সময় বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল গানটি। এরপর অনেক সিনেমার গান গাওয়ার অফার পেয়েছিলেন হেমা মালিনী। তবে অভিনয় করার পাশাপাশি তিনি গানকে কখনো প্রশ্রয় দেননি, এর একটি প্রধান কারণ হলো, তিনি চেয়েছিলেন তাঁর গান একমাত্র সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর গাইবেন।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গানের প্রতি হেমা মালিনীর আগ্রহ বেড়ে ছিল। তাই এক ডজন গান গেয়ে ফেলেছেন তিনি। এরপরে এলো সেই সময়। বাঙালির দূর্গা পূজার জন্য দুটি গান রেকর্ড করেছেন হেমা মালিনী, যার সুর দিয়েছেন অঞ্জলি দয়াল। নিজে গান গেয়ে অত্যাধিক সন্তুষ্ট হয়েছেন হেমা মালিনী, কিন্তু নিজেই সন্তুষ্ট হয়ে থাকতে চান নি।তাই সঙ্গে সঙ্গে রেকর্ড করা গানগুলি হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেন সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকরের কাছে। তিনি চান তার গান শুনে লতাজি তার মতামত জানান। শুক্রবার নিজের ৭২ তম জন্মদিন পালন করেছেন বলিউডের এই সুন্দরী নায়িকা। এই অবসরে অনুরাগীদের শুভেচ্ছার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন তিনি সোশ্যাল মিডিয়াতে।