আগামী ৭২ ঘণ্টায় দক্ষিণবঙ্গে প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস, ভয়াবহ দুর্যোগের আশঙ্কা

রবিবার সকাল থেকেই মেঘের আড়ালে ঢাকা পড়ে রয়েছে সূর্য। আবহাওয়া দপ্তরের সতর্কবার্তা অনুযায়ী রবিবার থেকে সামনের মঙ্গলবার অবধি রাজ্য জুড়ে প্রবল বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। আর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই কলকাতা ও উভয় ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব মেদিনীপুর ও বর্ধমানে প্রবল বর্ষণ শুরু হতে চলেছে। সতর্কতা অনুযায়ী রবিবার সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে বিক্ষিপ্ত ভাবে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে গিয়েছে। সময়ের সাথে সাথে আগামী ৭২ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আরো বাড়বে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, বঙ্গোপসাগরে ঘনীভূত হচ্ছে নিম্নচাপ, যা ক্রমশই গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের দিকে এগিয়ে আসছে। আগামী ৭২ ঘণ্টায় নিম্নচাপের শক্তি বৃদ্ধির ফলে দক্ষিণবঙ্গে প্রবল বৃষ্টি হবে। দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গ প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনার কথা জানাচ্ছে আলিপুর। ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় অতি বর্ষণের সম্ভাবনার কথা জানিয়ে হলুদ সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার জন্য ২০ থেকে ২২শে সেপ্টেম্বর অব্দি মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে মাছ ধরতে যেতে নিষেধ করা হচ্ছে।

যারা ইতিমধ্যেই সমুদ্রে পৌঁছে গিয়েছেন, তাদের অবিলম্বে ফিরে আসার পরামর্শ দিয়েছে হাওয়া অফিস। মৌসম বিভাগ সূত্রে খবর, রবিবারে পাশাপাশি সোমবার বীরভূম, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামে প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়ি কোচবিহারে এবং কালিম্পংয় জেলায় আগামী তিনদিন ভারী বৃষ্টির সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। এর ফলে উত্তরের নদীগুলিতে জলস্তর বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

শুধু তাই নয়, প্রবল বৃষ্টিপাতের জেরে পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধ্বসের আশঙ্কা করছেন আবহবিদেরা। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হলো, রবিবার সকাল পর্যন্ত কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৯ ডিগ্রি। শনিবার সন্ধ্যায় শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৩৫.৩ ডিগ্রি। এরিন বাতাসে আদ্রতার পরিমাণ সর্বনিম্ন ৬১ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৯৪ শতাংশ অব্দি ঘোরাফেরা করেছে।