ভা’রী বৃষ্টির পূর্বাভাস, জা’রি হ’লু’দ স’ত’র্ক’তা, কলকাতা নিয়ে কি ব’ল’লো হাওয়া অফিস?

সোমবার থেকেই আবার কলকাতার আকাশ মেঘলা করতে শুরু করেছে। আবহাওয়া দপ্তর থেকে খবর পাওয়া গেছে, দক্ষিণবঙ্গে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বজ্রপাতের আশঙ্কা থাকায় নিরাপদ স্থানে সকলকে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন আবহাওয়া দপ্তর। পাহাড়ি এলাকায় প্রবল বৃষ্টির ফলে ধ্বস নামতে পারে বলে আশঙ্কা আবহাওয়া দপ্তরের। নদীর জলস্তর বেড়ে যাবার ফলে প্লাবনের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

আজ সোমবার কলকাতায় জলীয় বাষ্প বেশি থাকার কারণে অস্বস্তি হতে পারে মানুষের। আজ সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭.৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ১° বেশি। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৩.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের জলীয় বাষ্পের পরিমাণ রয়েছে ৯৪ শতাংশ।

উত্তর প্রদেশ থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত যে মৌসুমী অক্ষরেখা ঝাড়খণ্ডের ঘূর্ণবাত এবং গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে গেছে, তার প্রভাবে জলীয়বাষ্প ঢুকেছে রাজ্যে। সক্রিয় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে সমস্ত রাজ্যে। বুধবার থেকে এই বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে যাবে দক্ষিণবঙ্গে। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুরের ঝাড়গ্রামে এবং মঙ্গলবার বীরভূম এবং মুর্শিদাবাদের বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

সোমবার অতি ভারী বৃষ্টির হলুদ সর্তকতা দেওয়া হয়েছে জলপাইগুড়ি, কুচবিহার আলিপুরদুয়ারে এবং ভারী বৃষ্টির হলুদ সর্তকতা দেওয়া হয়েছে দার্জিলিং কালিম্পং এ। মঙ্গলবার অতি ভারী বৃষ্টির কমলা সর্তকতা দেওয়া হয়েছে জলপাইগুড়ি কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ারে। ভারী বৃষ্টির কমলা সর্তকতা দেওয়া হয়েছে দার্জিলিং কালিম্পংএ। প্রবল বর্ষণ হতে পারে কোচবিহারে।