মাত্র দেড় মাসে ২ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছেছে “দুয়ারে সরকার”, সাফল্যে খুশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

টানা দেড় মাস থেকে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় দুয়ারে দুয়ারে প্রকল্প চালু হয়েছে। আর এই সুবিধা সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যেই। তবে সামনেই একুশে বিধানসভা নির্বাচন তার আগে তৃণমূল সরকারের মুকুটে এখন নতুন পালক যোগ হলো। ইতিমধ্যেই দেড় মাসের দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্পের আওতায় 2 কোটি মানুষকে পরিষেবা দেওয়া গেছে, যা দেখে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও তৃণমূল সরকার দুজনেই উচ্ছ্বসিত। সত্যিই এটি একটি নজিরবিহীন সাফল্য ট্যুইট করে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার সাথে ধন্যবাদ জানিয়েছেন রাজ্যবাসীকে।

তবে এই এগারোটি জনদরদি প্রকল্পের মধ্যে সবার প্রথমে রয়েছে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প। প্রতিটি পরিবারকে চিকিৎসার জন্য বাৎসরিক 5 লক্ষ টাকা দেওয়ার এই প্রকল্প স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প। তবে মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে বিভিন্ন প্রকল্পের শিবিরগুলোতে কতজন কিভাবে তালিকা ভিত্তিক সুবিধা পেয়েছেন তার পরিসংখ্যান দিয়েছেন নিজে।

এই দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্প শুরু হয়েছে গত ডিসেম্বর মাসের 1 তারিখ থেকে যার শেষ তারিখঃ 31 জানুয়ারি। এই টানা দুই মাসের প্রকল্পের মধ্যে ইতিমধ্যেই 2 কোটি মানুষ পরিষেবা পেয়েছেন। মোট 11 টি জনদরদি প্রকল্পের সুবিধা দিয়েছে সরকারি কর্মচারীরা। কন্যাশ্রী থেকে শুরু করে রুপশ্রী যুবশ্রী ঐক্যশ্রী স্বাস্থ্য সাথী এই সমস্ত জনদরদি প্রকল্পের সুবিধা হাতে হাতে পাচ্ছে সাধারণ মানুষ। কিন্তু এত কম সময়ের মধ্যে রাজ্যবাসীর সাড়া পেয়ে উচ্ছ্বসিত তৃণমূল সরকার।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ট্যুইট করে জানিয়েছেন ইতিমধ্যেই 62 লক্ষ মানুষ স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের পরিষেবা পেয়েছেন। কৃষক বন্ধু 4 লক্ষ তপশিলি বন্ধু সাত লক্ষ তাছাড়া কন্যাশ্রী রূপশ্রী যুবশ্রী ও অন্যান্য আরো প্রকল্পের পরিষেবা পেয়েছে সাধারন মানুষ।বর্তমানে বলা যেতেই পারে সামনের বিধানসভা নির্বাচনের আগে দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্প যে একটা দারুন বাউন্সার বিরোধীদের জন্য সেটা কিন্তু স্পষ্ট।