সে’ক্স ড’ল কি’ন’তে গিয়ে প্র’তা’র’ক চ’ক্রে পড়’লেন এক অবসর’প্রাপ্ত প্র’ধা’ন শি’ক্ষ’ক! খো’য়া’লে’ন স’র্ব’স্ব

সেক্স ডল কিনতে গিয়ে প্রতারক চক্রে পড়লেন এক অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক! খোয়ালেন সর্বস্ব

শখ পূরণ করতে গিয়ে 37 লক্ষ টাকার বিনিময়ে কিনতে গিয়েছিলেন সেক্স ডল। এটা করতে গিয়েই প্রতারকের ফাঁদে পা দিয়ে ফেললেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। তার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ধরা পড়েছেন প্রতারক। অভিযুক্ত ওই প্রতারক শিলিগুড়ির একটি ডান্স বারের মালিক। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জলপাইগুড়ি বেলাকোবার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সম্প্রতি শিলিগুড়ি হংকং মার্কেটে সেক্স ডল কিনতে গিয়েছিলেন। দোকান ঘুরে তিনি তার পছন্দমত একটি সেক্সডল খুঁজে নেন। দোকানদার এক লক্ষ টাকার বিনিময় সেটি বেচতে রাজি হন। কয়েক হাজার টাকা অগ্রিম জমা করে সেটিকে কিনে নেন ওই শিক্ষক। কথা দেওয়া হয়েছিল তার কেনা সেক্স ডল তাকে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে। তারপর তিনি বাকি টাকা পরিশোধ করে দেবেন।

এরপর থেকেই নানা ভাবে ওই শিক্ষককে ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করতে শুরু করে প্রতারক। শেষমেষ পুলিশের দ্বারস্থ হন ওই ব্যক্তি। তার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাজগঞ্জ থানার পুলিশ শিলিগুড়ির ডান্স বারের মালিককে গ্রেপ্তার করেছে। উল্লেখ্য সম্প্রতি সাইবার প্রতারণার শিকার হয়েছেন একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা। তাদের ব্যাংক একাউন্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা খোওয়া যাচ্ছে। তারা অচেনা নম্বর থেকে ফোন পাচ্ছেন। কেওয়াইসি আপডেট করার অছিলায় তাদের প্রতারণা করা হচ্ছে।

অনেকেই এমন প্রচারণায় পা দেওয়ার আগে নিজের বুদ্ধি খাটিয়ে বিপদ থেকে রক্ষা পাচ্ছেন। তবে কেউ কেউ আবার প্রতারকদের কথার ফাঁদে পা দিয়ে ফেলছেন। হারাচ্ছেন সবকিছু। মোবাইলে পাঠানো লিংকে ক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংক একাউন্ট থেকে উধাও হয়ে যাচ্ছে টাকা।