লম্বায় প্রায় ৩৬ ফুট, মন্দারমণিতে ভেসে উঠল দৈত্যাকার মৃত তিমি, দেখতে উপচে পড়া ভিড়

মন্দারমণিতে ভেসে উঠল দৈত্যাকার মৃত তিমি

লকডাউন পরিস্থিতিতে সমুদ্র সৈকত গুলিতে এর আগে দেখা গেছে কচ্ছপ সহ বহু সামুদ্রিক প্রাণী। মানববিহীন সৈকতে মনের আনন্দে নির্ঝঞ্ঝাটে উড়ে বেড়িয়েছে বহু পাখি। তবে এবার সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো একটি বিশালাকায় মৃত তিমির দেহাবশেষ। ঘটনাটি ঘটেছে মন্দারমনির সৈকতে। সোমবার সকালে স্থানীয়রা দেখেন এই বিশালাকায় তিমিটি উপকূলের তটে পড়ে রয়েছে। এরপরই উত্তেজনা ছড়ায় সেখানে। তিমি দেখতে ভিড় করেন জনতা।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন বনদপ্তর এর কর্মীরা। তিমিটি “সেয় হোয়েল”প্রজাতির অন্তর্গত বলেই মনে করা হচ্ছে। এই প্রজাতির তিমি সাধারণত প্রশান্ত মহাসাগরের গভীর সমুদ্রে বসবাস করে। প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে, সম্ভবত কোনো বড় জাহাজের ধাক্কায় মৃত্যু হয়েছে তিমিটির।তিমিটির উচ্চতা এবং ওজন সম্পর্কে স্পষ্ট কোনো ধারণা দিতে পারেনি বন দপ্তর।

প্রসঙ্গত ২০১০ সালেও এরকম একটি মৃত তিমি আটকা পড়ে মৎস্যজীবীদের জালে। তার দেহাবশেষ রাখা হয়েছে দীঘার মেরিন জুওলজিক্যাল মিউজিয়ামে। জুলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার এক গবেষকের মতে, এই ধরনের তিমি বিরল প্রজাতির অন্তর্গত। জীবাশ্মের বিচারে দেশের কাছে এগুলি মস্ত বড় সম্পদ।

প্রায় ১লক্ষ টাকা ব্যয় করে বিশেষ এক জীবানুনাশক কেমিকাল রঙের প্রলেপ লাগিয়ে তিমিটিকে সংরক্ষণ করা হয়। বনদপ্তর এর সূত্রে জানানো হয়েছে, এই তিমিটি কেও একইভাবে সেখানেই রাখার পরিকল্পনা করছেন তারা।