বিজেপি নেতা খুনের প্রতিবাদে বনধের ডাক গেরুয়া শিবিরের, তুফানগঞ্জে মোতায়েন পুলিশ

তুফানগঞ্জে বিজেপির ডাকা ১২ ঘন্টা বনধ, যার ফলেই এখন শুনশান তুফানগঞ্জ। বিজেপি কর্মী কালাচাদ কর্মকারের খুনের প্রতিবাদে এই বনধ, যা নিয়েই রাস্তায় বিজেপি তৃনমূল। একদল এই বনধের সমর্থনে আরেক দল এই বনধের বিপক্ষে। স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, এই বনধের প্রভাব দারুণ ভাবে পরেছে তুফানগঞ্জে, রাস্তা সকাল থেকেই শুনশান, দোকানপাট একেবারেই বন্ধ। আর সকাল থেকেই বিভিন্ন জায়গায় দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে বচসা ও হাতাহাতি। জানা গেছে তুফানগঞ্জের মারুগঞ্জে দুই দলের মধ্যে বচসা সকাল থেকেই।

কোথাও টায়ার জ্বালিয়ে, কোথাও বা মিছিল বের করে বিক্ষোভ। আর এই সব সামাল দিতেই রাস্তায় এখন পুলিশ বাহিনী। কোচবিহার জেলার তুফানগঞ্জ মহকুমা, সেখানেই তুফানগঞ্জ ১ নং ব্লকের অধীনে তজাকা নাককাটি গাছের এই বিজেপি নেতা কালাচাদ কর্মকারের খুনের প্রতিবাদেই মিছিল, বনধ ও অশান্তি শহর জুড়ে। উল্লেখ্য, আসলে কালিপূজা থেকেই চলছিল এই অশান্তি, স্বামীজী ও নেতাজি সংঘের কালিপুজো নিয়ে শুরু হয় অশান্তি, যার ফলে দুই ক্লাবের মধ্যে বচসা ও হাতাহাতি পর্যন্ত হয়।

আর সেই অশান্তি মেটাতেই কালাচাদ বাবু বের হয়। আর সেখানেই তাকে বেধরক মার মারে, যার ফলে একেবারে গুরুতর আহত অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। এর পরেই তিনি হাসপাতালে মারা যান। এর পরেই বিজেপি কর্মীরা একেবারে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে ও তার মৃত দেহ নিয়ে তুফানগঞ্জের চামটা সড়কে অবরোধ করে ও প্রতিবাদ করে। আর এর পরেই বিজেপির তরফ থেকে ১২ ঘন্টা বনধের ডাক দেওয়া হয়।