আজ থেকেই ৪০ টি স্টাফ স্পেশাল ট্রেন চা’লু হ’লো শিয়ালদহ শা’খা’য়

বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারি অফিস কাছারি খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অনুসারে ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে সরকারি অফিস খুলে গিয়েছে। তবে কর্মীরা অফিস পৌঁছাবেন কিভাবে সেই নিয়ে বিশেষ কোনো সিদ্ধান্ত নেননি মুখ্যমন্ত্রী। প্রতিদিন নবান্নের কাছে লোকাল ট্রেন চালু করার ব্যাপারে হাজার হাজার আবেদন জমা পড়েছে। তবে করোনার ভয়ে রাজ্য এখনই লোকাল ট্রেন চালু হতে দিতে নারাজ।

এদিকে স্টাফ স্পেশাল ট্রেন সীমিত হওয়ার কারণেও কার্যত ঘোর বিপাকে পড়েছেন নিত্যযাত্রীরা। বাসে ট্রামে কার্যত তিল ধারণের জায়গা নেই। চরম এক ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে অফিস যাত্রীদের ক্ষেত্রে। এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নতুন এক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেন। এখনই লোকাল ট্রেন চালু না হলেও স্টাফ স্পেশাল বেশকিছু ট্রেন চলাচলের অনুমোদন দিলেন তিনি। আজ থেকে শিয়ালদা ডিভিশনে চলবে অতিরিক্ত ৪০টি স্টাফ স্পেশাল ট্রেন।

সোমবার থেকে স্টাফ স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার আরো ৬০টি স্টাফ স্পেশাল ট্রেন নতুন করে চালু করার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যদি বর্তমানে রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হয় তাহলে সাড়ে তিনশোর বেশি ট্রেন চলাচলের অনুমোদন পাওয়া যাবে। এদিকে যাত্রীদের প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়ে বৃহস্পতিবারও রাজ্যকে চিঠি দিয়ে লোকাল ট্রেন চালু করার আবেদন জানিয়েছিল রেল কর্তৃপক্ষ। তবে সেই আবেদন আপাতত খারিজ হয়ে গিয়েছে।

শুধু জনস্বার্থে নয়, অর্থনীতির দিক বিবেচনা করেও লোকাল ট্রেন চালু করার পক্ষে সওয়াল করছে রেল কর্তৃপক্ষ। দৈনন্দিন যাত্রীদের মধ্যে থেকে অনেকেই গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে না পারার দরুন তাদের কর্মসংস্থান সংকটের মুখে পড়ছে। এদিকে লোকাল ট্রেন পরিষেবা দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার দরুন ট্রেনের উপার্জনেও কাটছাঁট হয়েছে। তার পরিপ্রেক্ষিতে লোকাল ট্রেন চালু করতে চায় রেল কর্তৃপক্ষ। তবে মুখ্যমন্ত্রী এখনই সেই অনুমোদন দিতে চান না।