এবার থেকে অনুমতি ছাড়া বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী নয়, দেখতে পারবে না পরিচয় পত্র, সিদ্ধান্ত কমিশনের

একুশে বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে নন্দীগ্রামের ভোট পর্ব নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল। বিজেপির পাশাপাশি কেন্দ্রীয় বাহিনীও রয়েছে তৃণমূলের অভিযোগের নিশানায়। কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোট প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠেছে। বিশেষত নন্দীগ্রামে ভোটগ্রহণের দিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর তৎপরতাকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনের কাছে একাধিক অভিযোগ দায়ের করেছে তৃণমূল।

এমতাবস্থায় নিবাচন কমিশন আগামী দফার ভোটের জন্য কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপরে বেশ কিছু নিয়ম নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। যেমন বুথের ভেতর প্রবেশ করতে পারবেন না কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্যরা। পাশাপাশি তারা কোনো ভোটারের পরিচয় পত্রও দেখতে পারবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। কেন্দ্রীয় বাহিনীর নোডাল অফিসার তথা বিএসএফের এডিজি অশ্বিনী কুমার সিংয়ের কাছে এই মর্মে একটি নির্দেশিকা পৌঁছেছে।

প্রসঙ্গত, পয়লা এপ্রিল দ্বিতীয় দফার ভোটের দিনে নন্দীগ্রামে ২২৫ নম্বর বুথে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর নির্দেশে ভোট প্রভাবিত করার এবং এলাকাবাসীকে ভয় দেখানোর অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় ওই বিধানসভা কেন্দ্রেরই ২০৭ নম্বর বুথে এলাকাবাসীকে বিজেপিকেই ভোট দেওয়ার কথাও বলতে শোনা গিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে।

আবার কোতুলপুরের ৮০নম্বর বুথেও বিশেষভাবে সক্ষম এক ব্যক্তি এবং তার ছেলেকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। এমনই সব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনে দ্বারস্থ হয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।