কলকাতা থেকে ঢাকা এখন আ’রো ক’ম স’ম’য়! ট্রেনে মাত্র সা’ড়ে ৩ ঘন্টায় বাংলাদেশ

এপার বাংলা ওপার বাংলার মধ্যে দূরত্বটা যেন আরও খানিকটা কমে গেল। এবার থেকে ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াত করতে পারবেন মাত্র সাড়ে তিন ঘন্টায়! পদ্মা নদীর (Padma River) উপরে সেতু তৈরি করছে রেল বিভাগ। এই কাজ সম্পন্ন হলেই ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সময়জনিত ব্যবধান কমে আসবে। দুই বাংলার মানুষ মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টার ব্যবধানেই পৌঁছে যাবেন তাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্রে।

তবে তার জন্য অবশ্য এখনও তিনটে বছর অপেক্ষা করতে হবে। পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ প্রকল্প চালুর পরেই ঢাকা-কলকাতার যোগাযোগে গতি আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। বর্তমানে যেখানে ভারত-বাংলাদেশ আসা-যাওয়া করতেই ১০ ঘন্টা সময় লাগে, সেখানে প্রায় ৭ ঘন্টা সময় বাঁচবে দুই বাংলার যাত্রীদের। কলকাতা থেকে গেদে এবং গেদে হয়ে বাংলাদেশের সীমান্ত স্টেশন দর্শনা পার হয়ে ঢাকায় অবস্থিত ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে পৌঁছতে পৌঁছতেই কার্যত ১০ ঘণ্টা সময় লেগে যায়।

কলকাতা থেকে ঢাকা মৈত্রী এক্সপ্রেস আপাতত দুই বাংলার মানুষের একমাত্র ভরসা। ৪০০ কিলোমিটার রেলপথ পাড়ি দিয়ে তবে এই এক্সপ্রেস ট্রেন পৌঁছায় গন্তব্যস্থলে। নতুন পথ চালু হলে সেই দূরত্ব কমে প্রায় ২৫১ কিলোমিটার পথে এসে দাঁড়াবে। কলকাতা স্টেশন থেকে বনগাঁ জংশন হয়ে হরিদাসপুর সীমান্ত দিয়ে বেনাপোল হয়ে যশোর, নড়াইল, ফরিদপুরের ভাঙা হয়ে ঢাকা পৌঁছোবে এই রেলপথ।

বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী মহম্মদ নূরুল ইসলাম সুজন জানাচ্ছেন, ২০২৪ সালের মার্চে পদ্মা নদীর উপর রেলপথ নির্মাণের কাজ শেষ হবে। ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে ঢাকা হয়ে কলকাতা যেতে ট্রেনে মাত্র ছয় ঘণ্টা সময় লাগবে। ট্রেনে আগরতলা থেকে কলকাতা যেতে বর্তমানে সময় লাগে ৩০ ঘণ্টারও বেশি সময় লাগে বলে জানাচ্ছেন বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী।