দ্বিতীয় দফার টিকা নিলেন ফিরহাদ, বললেন ‘খুব বেশি হলে হয়তো মৃত্যু হবে’

করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় অধীর আগ্রহে দিন গুনছেন মানুষ। ভ্যাকসিনের ট্রায়াল’ পর্ব এখনো শেষ হয়নি। তাই আগামী বছরের আগে সাধারণের ব্যবহারযোগ্য ভ্যাকসিন পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে ভারতে উৎপাদিত করোনা টিকা কো-ভ্যাকসিনের ট্রায়াল’ কিন্তু জোরকদমে চলছে। কলকাতার পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম নিজে সেই টিকার ট্রায়ালে অংশগ্রহণ করেছেন।

নিজের জীবন বিপন্ন করে ভারতে উৎপাদিত নাইসেডের করোনা টিকার প্রথম ডোজ তিনি নিয়েছিলেন গত ২রা ডিসেম্বর। ২৮ দিন পরে আজ আবারও করোনার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন তিনি। উল্লেখ্য, রাজনৈতিক নেতা-নেতৃত্বদের মধ্যে তিনিই প্রথম পরীক্ষাধীন করোনার টিকা নিজের শরীরে নেওয়ার সাহস দেখিয়েছেন। সাহসে নির্ভর করেই দ্বিতীয় দফার করোনার টিকা নিলেন তিনি।

কলকাতা পুরসভার চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, প্রথম দফার করোনা টিকা নেওয়ার পর তিনি শারীরিকভাবে একেবারে সুস্থ রয়েছেন। দ্বিতীয় দফার টিকা নেওয়ার পরেও আপাতত সুস্থ রয়েছেন তিনি। তবে ভারতে উৎপাদিত করোনা টিকা নিয়ে তিনি বেশ আশাবাদী। তিনি বলেন, নাইসেডের টিকা ব্যর্থ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবুও খুব যদি বেশি কিছু হয়, তাহলে হয়তো তার মৃত্যু হবে! কিন্তু আর সকলে উপকৃত হবেন।

তিনি আরও বলেছেন, একজন ভারতীয় হিসেবে ভারতে উৎপাদিত করোনার টিকা তার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উল্লেখ্য, কো-ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চালানোর জন্য দেশের প্রায় ২৪টি সেন্টারে ২৮ হাজার ৫০০ জন স্বেচ্ছাসেবক প্রয়োজন নাইসেডের। বয়স্কদের মধ্যে যাদের কো-মরবিডিটি নেই তেমন স্বেচ্ছাসেবকের খোঁজ করছে নাইসেড। ইচ্ছুক ব্যক্তিরা নাইসেডের নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এই প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করতে পারেন।