ভ্যা’ক’সি’ন কারা নিতে পারবেন ও কারা পারবেন না, জারি করা হলো সরকারি নির্দেশিকা, আজই জানুন

আগামী শনিবার দেশজুড়ে গণহারে দেশের বৃহত্তর করোনা টিকাকরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই পর্বে দেশের অন্তত ৩০ কোটি মানুষকে টিকা প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র সরকার। এই পর্বে কারা টিকা পাবেন, কিভাবে পাবেন সে সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকা ইতিমধ্যেই প্রদান করেছে কেন্দ্র। আপাতত দেশের প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা এবং কো-মরবিডিটি সম্পন্ন মানুষ কিংবা অন্যান্য অসুস্থ ব্যক্তিদের টিকা প্রদান করা হতে চলেছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, প্রথম দফার টিকাকরণ কর্মসূচিতে ১৮ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তিদেরই টিকা প্রদান করা হবে। শিশুদের আপাতত টিকা প্রদান করা হচ্ছে না। প্রসূতি কিংবা প্রেগন্যান্সি নিয়ে নিশ্চিত নন এবং যে সকল মহিলা শিশুদের স্তন্যপান করাচ্ছেন, তারাও এই পর্যায়ে টিকা নিতে পারবেন না। পাশাপাশি, যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, হৃদরোগ, স্নায়ু, বা ফুসফুসজনিত রোগ বা এইআইভি জনিত কঠিন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা টিকা নিতে পারবেন।

তবে যারা সম্প্রতি অন্য রোগের টিকা নিয়েছেন, তারা টিকা গ্রহণের অন্তত ১৪ দিন পরে করোনা টিকা নিতে পারবেন। আবার যারা করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন, তারাও সুস্থ হয়ে ওঠার অন্তত ৪-৮ সপ্তাহ পরে টিকা নিতে পারবেন। একইভাবে যারা করোনা চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি নিয়েছেন, তাদেরকেও সুস্থ হওয়ার ৪-৮ সপ্তাহ পরে টিকা নিতে হবে। অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হলেও সুস্থ হয়ে ওঠার ৪-৮ সপ্তাহ পরে টিকা নিতে হবে বলে জানানো হয়েছে।

সিরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড এবং ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন, আপাতত ব্যবহারের অনুমোদন মিলেছে দেশে। তবে প্রথম দফায় যে সংস্থার টিকা নিচ্ছেন, পরবর্তী দফাতেও সেই একই সংস্থার টিকা নিতে হবে। দেশের অন্তত ৩ হাজার ৬টি কেন্দ্রের প্রায় ৩ লক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীকে প্রথম দফায় টিকা প্রদান করা হবে বলে জানানো হয়েছে।