মমতার গেমপ্ল্যান, ভোটের মধ্যেই বিরাট ঘোষণা, জেনে নিন

একুশের লড়াইয়ে রাজ্যের মসনদ ধরে রাখতে মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে তৃণমূল। রাজ্যবাসীর মন পেতে নির্বাচনী ইশতেহারে ইতিপূর্বে বহু আশ্বাস দিয়েছে রাজ্য শাসক দল। তার আগেই মুখ্যমন্ত্রীর তরফ থেকে রাজ্যে চালু হয়েছে একাধিক প্রকল্প। এর মধ্যে অন্যতম ছিল মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দুয়ারে সরকার প্রকল্প। যে প্রকল্পের মধ্যে সর্বাধিক জনপ্রিয় হয়েছে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের উদারীকরণ নীতি।

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের উদারীকরণ নীতিতে রাজ্যের দশ কোটি মানুষকে এই প্রকল্পের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এর ফলে রাজ্যের প্রতিটি পরিবার চিকিৎসার জন্য বার্ষিক ৫ লক্ষ টাকার সুবিধা পাবেন। ইতিমধ্যে রাজ্য জুড়ে ব্যাপক সাড়া ফেলে দিয়েছে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প। রাজনৈতিক মহলের দাবি, নির্বাচনী লড়াইয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের তুরুপের তাস হয়ে উঠতে পারে এই প্রকল্প।

গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকেই রাজ্যজুড়ে দুয়ারে সরকার প্রকল্প চালু হয়ে যায়। যার ফলে রাজ্যবাসী স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পেয়েছেন। তবে নির্বাচন শুরু হয়ে যাওয়াতে এখন আপাতত স্বাস্থ্য সাথী কার্ড করানোর প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। আজ রায়দিঘিতে ভোটের প্রচার চলাকালীন মুখ্যমন্ত্রী জানালেন, যারা এখনো স্বাস্থ্য সাথী কার্ড হাতে পাননি তাদের বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে কার্ড।

নির্বাচনের জন্য এখনো রাজ্যের বহু পরিবার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড হাতে পাননি। যার ফলে যারা এখনো কার্ড হাতে পাননি তাদের মনে এই নিয়ে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছিল। তবে মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণায় আপাতত স্বস্তি পেলেন তারা। ভোটের পর রাজ্যের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যাবে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড।