অভিনব বাইক, নিমিষে উঠে যাচ্ছে গাছে, পারছে নারকেল, অবাক আবিষ্কারে হতচকিত নেট দুনিয়া

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে, প্রায়শই নানান অদ্ভুত জিনিসের সাক্ষী থাকেন নেটাগরিকরা। হঠাৎ করে যা শুনলে অথবা দেখলে তার বাস্তবতা সম্পর্কে প্রশ্ন ওঠে। তবে এরকমই বহু অবাস্তব, অসম্ভব ঘটনা প্রায় দিনই পৃথিবীর কোথাও না কোথাও সম্ভব হয়ে চলেছে। তারই মধ্যে একটি হলো, বাইকে করে গাছে ওঠা। এই অসম্ভব কার্যটিকে সম্ভব করে দেখিয়েছেন ম্যাঙ্গালোরের এক কৃষক।

ম্যাঙ্গালোরের ওই কৃষক গণপতি ভট্ট এমন এক বাইক আবিষ্কার করেছেন যার মাধ্যমে সহজেই সুপারি নারকেলের মত লম্বা লম্বা গাছে ওঠা যায়। গনপতি বাবু জানিয়েছেন, তার আবিষ্কৃত এই বাইকে মাত্র এক লিটার পেট্রোল ঘুরলেই অন্ততপক্ষে আশিটি সুপারি এবং নারকেল গাছে ওঠা যায়। এই বাইকের সর্বোচ্চ গতিবেগ হলো ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার।

এই বাইকের ওজন ২৮ কেজির কাছাকাছি। বর্ষাকালে সুপারি এবং নারকেল গাছে পোকার সংক্রমণ এড়াতে গাছের আগায় কীটনাশক স্প্রে করতে হয়। প্রবল বর্ষণের সময় অনেকেই গাছে উঠে তা করতে চান না। যার ফলে ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই অসুবিধা দূর করতেই এমন বাইক বাড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করেন গণপতি বাবু। তার আবিষ্কৃত এই বাইকে চেপে গাছে উঠতে কৃষকদের ১০ মিনিট সময় লাগবে।

কৃষকদের কাছে তার এই আবিষ্কারের যথেষ্ট কদর রয়েছে। ইতিমধ্যেই বহু কৃষক তার আবিস্কৃত বাইক কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন গণপতি ভট্ট। শুধু তাই নয়, মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা এমন অভূতপূর্ব আবিষ্কারের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলেই জানা গেছে। কৃষকদের কাছে চাষের এক নতুন দিগন্ত খুলে দিল গণপতি ভট্টর আবিষ্কৃত এই বাইক।