জা’ল ভ্যা’ক’সি’ন কা’ন্ড, সামনের মাসে লালবাজার ঘে’রা’ও করবে বিজেপি

কসবা টিকা কান্ডকে কেন্দ্র করে সিবিআই তদন্ত দাবি করলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। ভ্যাকসিন চক্রের বিষয়টি সামনে আসার পর একাধিক জায়গায় বিক্ষোভ দেখান বিজেপি। তাদের মতে, এই ঘটনায় সরাসরি জড়িত ছিলেন তৃণমূল নেতারা। বিজেপির বিক্ষোভ মঞ্চে দেখা যায় সায়ন্তন বসু, অগ্নিমিত্রা পালকে। বিজেপি নেতারা বিক্ষোভ দেখালে পুলিশ এসে তাঁদেরকে সরিয়ে নিয়ে যায়। এরপরই কলকাতা পুলিশের উদ্দেশ্যে সায়ন্তন বসু হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, দু-একদিনের মধ্যে আমরা বিক্ষোভের তারিখ জানিয়ে দেবো। যত দিন লকডাউন চলবে ততদিন আমরা উপনির্বাচন হতে দেবো না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি করে মুখ্যমন্ত্রী থাকেন তা আমরা দেখে নেবো।

পাশাপাশি তিনি আরো বলেন যে, আমাদের কিছুতেই আটকানো যাবেনা। সামনের মাসে ১ লক্ষ মানুষ নিয়ে লালবাজার ঘেরাও করবো আমরা। আমরা দেখতে চাই কার কত ক্ষমতা। জাল ভ্যাকসিন নিয়ে যদি কেউ মারা যেত তাহলে তৃণমূল কংগ্রেস কেন্দ্রের নামে দোষ দিত। মোদি সরকার ভ্যাকসিন পাঠিয়েছে এবং তাতেই মৃত্যু হয়েছে এমন কথাই বলতেন তারা।

অপরদিকে এই দিন সংসদ সুভাষ সরকার, বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায় কে নিয়ে স্বাস্থ্য ভবনে যান বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তাদের অভিযোগ, এটি এটি বড়োসড়ো ষড়যন্ত্র ছাড়া অন্য কিছু নয়। বড় কোন এজেন্সিকে দিয়ে তদন্ত করানো উচিত। সিবিআই এই বিষয়ে তদন্ত করুন। জাল টিকা নিয়ে এখনও কেউ মারা যায়নি ঠিকই, কিন্তু যদি এমনটা হত তাহলে কেন্দ্রের নামে দোষ দেওয়া হত। এটি একটি বড়সড় ষড়যন্ত্র। তদন্ত করা উচিত সিবিআই এর।

কসবায় ভুয় ভ্যাকসিন কাণ্ডে জড়িত দেবাঞ্জন দেবকে জেরা করার পর বহু চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আসতে শুরু করেছে। কলকাতা পুরসভার নকল নিয়োগপত্র দেওয়া থেকে শুরু করে হলোগ্রাম পর্যন্ত চুরি করেছিলেন তিনি। একাধিক নেতা মন্ত্রীদের সঙ্গে ছবি রয়েছে এই দেবাঞ্জন দেবের। জাল ভ্যাকসিন এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য এদিন রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন বিজেপি।