যু’দ্ধ’বি’রো’ধী কণ্ঠ’স্বর রো’ধ করতে স’ম্পূ’র্ণ রাশিয়াজুড়ে ব’ন্ধ করে দেওয়া হলে ফেস’বুক

যু'দ্ধ'বি'রো'ধী কণ্ঠ'স্বর রো'ধ করতে স'ম্পূ'র্ণ রাশিয়াজুড়ে ব'ন্ধ করে দেওয়া হলে ফেস'বুক

এককালে মানুষের প্রতিবাদ জানানোর অন্যতম একটি মাধ্যম ছিল সংবাদমাধ্যম। খবরের কাগজের মাধ্যমে অথবা বেতার যন্ত্রের মাধ্যমে অনেক মানুষ প্রতিবাদ জানাত যেকোনো প্রসঙ্গতে। আজ সেই স্থান নিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া। যেকোনো বিষয় নিয়ে আপনি যদি নিজের মন্তব্য প্রকাশ করতে চান তাহলে সবথেকে বড় প্ল্যাটফর্ম হল ফেসবুক। ফেসবুকের সাহায্যে আপনার কথা মুহূর্তে পৌঁছে যাবে হাজার হাজার মানুষের কাছে। আজ এই প্ল্যাটফর্মকে সঙ্গী করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সোচ্চার হয়েছেন রাশিয়ার বিভিন্ন মানুষ। সারা দেশ জুড়ে যেখানে রাশিয়া নিন্দায় সরব হয়েছেন মানুষ সেখানে পিছিয়ে নেই রাশিয়াবাসীরা।

রাশিয়া এবং ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে তোলপাড় হয়ে গেছে গোটা বিশ্ব। অন্যদেশের বাসিন্দাদের সাথে সাথে রাশিয়ার বহু মানুষ প্রেসিডেন্টের এই পদক্ষেপের বি’রু’দ্ধে প্র’তি’বা’দ জানাচ্ছেন। মিডিয়ায় সোচ্চার হচ্ছেন অনেকে। যু’দ্ধে’র বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছে অনেকে। এবার এই কণ্ঠ’স্বর রো’ধ করার জন্য মাঠে নেমে বললেন স্বযং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট- ব’ন্ধ করে দেওয়া হলে ফেসবুক সম্পূর্ণ রাশিয়াজুড়ে। শুধু তাই নয়, টুইটারে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রাশিয়াতে। এছাড়া সেই দেশে একাধিক ওয়েবসাইট খোলা যাচ্ছে না বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, রাশিয়ার বহু মানুষ ফেসবুকের পাশাপাশি অনেক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারছিল না। কিন্তু রাশিয়া সংবাদমাধ্যম সূত্র থেকে খবর পাওয়া গেছে, এখনো রাশিয়ার প্রশাসনের তরফ থেকে কোনো নির্দেশিকা জারি করা হয়নি এই বিষয়ে। কিন্তু ইউক্রেনের ওপর রুশ বাহিনীর হা’ম’লা চালানোর পর সংবাদমাধ্যমের ওপর চা’প সৃষ্টি করা হয়েছিল বলে খবর পাওয়া গেছে।

এই সবকিছুর মধ্যে কিছু কিছু জায়গায় ফেসবুক এবং অন্যান্য অ্যাপ ব’ন্ধ হয়ে যাওয়ার খবর শুনে আরো একবার আঙ্গুল তোলা হচ্ছে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের উপর। এদিকে ইউক্রেনে যু’দ্ধে’র উ’ত্তা’প ক্রমশই বেড়ে চলেছে। এখনো পর্যন্ত বহু মানুষের মৃ’ত্যু হয়েছে ইউক্রেনে। গুলি এবং বোমা থেকে বাঁচানোর জন্য সাবওয়েতে আশ্রয় নিয়েছে বহু ইউক্রেনবাসী। জল ও বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে না কোনোভাবে। রীতিমতো কা’ন্না’য় ভেঙে পড়েছে বহু ইউক্রেনবাসী।

প্রসঙ্গত, ভারতীয়দের দেশে ফেরানোর জন্য তৎপর হয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নরেন্দ্র মোদির হস্তক্ষেপে রাশিয়া তিন ঘন্টার জন্য বিরতি ঘোষণা করেছিল। এই যুদ্ধ’বিরতির মধ্যে ভারতবর্ষে তার সমস্ত ভারতবাসীর থেকে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।