হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো হবে প্রশ্ন, ২৪ ঘণ্টায় উত্তর লিখে পাঠাতে হবে, নির্দেশিকা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের

ছাত্র-ছাত্রীদের হাজার অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও, সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী কোনো পড়ুয়াকেই বিনা পরীক্ষায় ডিগ্রি প্রদান করা সম্ভব নয়। অর্থাৎ, ছাত্র-ছাত্রীদের চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা দিতেই হবে। সুপ্রিম কোর্টের সেই নির্দেশ অনুযায়ীই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তরফ থেকে, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর স্তরের পরীক্ষার সম্ভাব্য দিন ঘোষণা করা হলো।

বুধবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তরফ থেকে প্রকাশিত একটি নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, আগামী ১লা অক্টোবর থেকে ১৮ই অক্টোবরের মধ্যে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠরত স্নাতক এবং স্নাতকোত্তরের পড়ুয়াদের চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে। শুধু তাই নয়, পরীক্ষা সম্বন্ধিত একটি বিশেষ গাইডলাইনও প্রকাশ করেছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেখানে বলা রয়েছে, বাড়িতে বসেই পরীক্ষা দিতে পারবেন পড়ুয়ারা।

এক্ষেত্রে নির্ধারিত দিনে প্রত্যেক পড়ুয়ার হোয়াটসঅ্যাপ বা ই-মেইলের একাউন্টে প্রশ্নপত্র পাঠিয়ে দেওয়া হবে। প্রশ্নপত্র পাঠানোর পরবর্তী ২৪ ঘন্টা সময়ের মধ্যেই উত্তর পত্র পাঠাতে হবে ছাত্র-ছাত্রীদের। সময় উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও যদি পরীক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে উত্তরপত্র জমা না দেন, তাহলে তাদের পরীক্ষা বাতিল হিসেবে গণ্য করা হবে। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তরফ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ৩১শে অক্টোবরের মধ্যেই চূড়ান্ত মেধাতালিকা প্রকাশ করা হবে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতিতে বহু পরীক্ষা বাতিল করেছে কেন্দ্র। তবে চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষাগুলি কিছুতেই বাতিল করতে রাজি নয় ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন। এই নিয়ে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে চাপানউতোরের সৃষ্টি হয়। বাংলার মুখ্যমন্ত্রীও ইউজিসির এই সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করেন। পরীক্ষা বাতিল প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেন ছাত্রছাত্রীরা। তবে সমস্ত বিরোধিতার অবসান ঘটিয়ে, সুপ্রিম কোর্ট ইউজিসির পক্ষেই রায় প্রদান করে।