এই জ’ঙ্গ’লে সকলেই করেন আ’ত্ম’হ’ত্যা! জেনে নিন এই জায়গার বিশেষত্ব

সুইসাইডাল’ পয়েন্ট, বা আত্মহত্যার জায়গা। জীবনের প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে যারা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন তাদের মধ্যে অনেকেই এমন কিছু জায়গা বেছে নেন। একসঙ্গে অনেক বেশি মানুষ যেখানে আত্মহত্যা করেন, সেই জায়গাটিই হয়ে ওঠে সুইসাইডাল পয়েন্ট। যেমন জাপানের ফুজি পর্বতমালার উত্তর-পশ্চিম ভাগে রয়েছে আত্মহত্যার জঙ্গল। শুনতে অবাক লাগলেও এটা সত্যি যে এই জঙ্গলে আত্মহত্যা করেছেন বহু মানুষ।

জাপানের এই আত্মহত্যার জঙ্গল এর নাম অওকিগাহারা। আমেরিকার সানফ্রান্সিসকোর গোল্ডেন ব্রিজের পর সুইসাইডাল পয়েন্ট হিসেবে নাকি বিশ্বের নিরিখে অওকিগাহারা উঠে এসেছে দ্বিতীয় অবস্থানে। শতাধিক মানুষ এখানে প্রতিবছর আত্মহত্যা করেন। বলা হয় আত্মহত্যা করার জন্যই নাকি মানুষ এখানে আসেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের মুখেও শোনা যায় যে এই জঙ্গলে মৃত ব্যক্তির প্রেতাত্মারা ঘুরে বেড়ায়!

মৃত ব্যক্তির প্রেতাত্মারা নাকি এই জঙ্গলের আসে পাশে যারা আসেন তাদের আত্মহত্যার পথে ঠেলে দেয়। আসলে একটা সময় ছিল যখন জাপানের ওই এলাকায় এক অদ্ভুত প্রথা চালু ছিল। সেখানে বৃদ্ধ বয়সের মানুষদের এই জঙ্গলে একা ছেড়ে দেওয়া হতো। দিনের পর দিন ওই জঙ্গলে একা থাকতে থাকতে একসময় তারা মৃত্যুবরণ করতেন। তারপর থেকে ওই জঙ্গলকে কেন্দ্র করে একাধিক গুজব রটেছে।

২০০২ সালে মৃতের সংখ্যা ছিল ৭৮,২০০৪। ২০০৩ সালে সংখ্যাটা ১০০তে পৌঁছে যায়। সালে এই রহস্যময় জঙ্গলে মৃতের সংখ্যা নাকি ১০০-এর থেকেও বেড়ে যায়। পরিসংখ্যান অনুসারে সেই বছরে ১০৮ জন মানুষ মারা গিয়েছিলেন এই জঙ্গলে। তারপর থেকেই অবশ্য জাপানের প্রশাসন এই জঙ্গলে মৃত মানুষের সংখ্যা তুলে ধরা বন্ধ করেছে।