দ্বাদশ শ্রেণীর স্টুডেন্টদের ট্যাব দিতে ব্যাংকের ন’থি জ’মা’র স’ম’য়’সী’মা বলে দি’লো শিক্ষাদপ্তর

রাজ্যের পড়ুয়াদের সরকারি খরচে স্মার্টফোন এবং ট্যাব কিনে দেওয়ার লক্ষ্যে “তরুণের স্বপ্ন” নামক প্রকল্পটি চালু করেছে রাজ্য সরকার। এই প্রকল্পের আওতায় গত শিক্ষা বর্ষের উচ্চমাধ্যমিক পড়ুয়াদের হাতে স্মার্ট ফোন কিনে দেওয়ার জন্য ১০ হাজার টাকা করে পাঠিয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকার। এবার রাজ্যের দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়াদের প্রত্যেককে স্মার্ট ফোন দেওয়ার জন্যেও তাদের ব্যাংক একাউন্টে ১০ হাজার টাকা করে পাঠাবে রাজ্য সরকার।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শিক্ষাদপ্তর এই কাজ দ্রুত শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছে। স্কুলগুলিতে ইতিমধ্যেই ছাত্র-ছাত্রীদের প্রয়োজনীয় নথিপত্র পাঠানোর নির্দেশিকা পৌঁছেছে। নবান্ন সূত্রে খবর, রাজ্যের তিন লক্ষ পড়ুয়ার ব্যাংক একাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য এখনো রাজ্যের কাছে এসে পৌঁছায়নি। সেই সমস্ত স্কুলের কতৃপক্ষকে আগামী ৭ তারিখের মধ্যেই ব্যাংক একাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষা দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে মাদ্রাসা ছাড়া রাজ্যের ৬৪০৭টি স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়ারা ট্যাব কেনার জন্য টাকা পাবেন। চলতি শিক্ষাবর্ষে রাজ্যের ৮ লক্ষ ১৪ হাজার ৬৮৭ জন দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়া এই অনুদান পাবেন। ৫ লক্ষ ২০ হাজার ৩৮৯ জন ছাত্র-ছাত্রীর ব্যাংক একাউন্ট সংক্রান্ত ডিটেইলস পৌঁছেছে শিক্ষা দপ্তরের কাছে। তবে বাকি শিক্ষার্থীদের ব্যাংক একাউন্ট সংক্রান্ত ডিটেলস এখনো পাওয়া যায়নি।

উত্তর ২৪ পরগনা জেলার প্রায় ৩৩ হাজার পড়ুয়ার নথি এখনও জমা পড়েনি বলে জানা যাচ্ছে। পশ্চিম মেদিনীপুরের ৮ হাজার শিক্ষার্থীর নথি এখনও জমা পড়েনি। মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, হুগলি, বাঁকুড়া এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলাতেও নথি জমা না পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যাটা কিছু কম নয়। ১৯ জুন শিক্ষা দফতর নোটিশ জারি করে ব্যাংক একাউন্টের ডিটেলস পাঠানোর নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছিল। তবে সেই কাজ এখনো বেশ কিছু ক্ষেত্রে অসম্পূর্ণ রয়ে গিয়েছে।