বিয়ে শেষের তিন মিনিটের মধ্যেই ডিভোর্স, কারণ জেনে আকাশ থেকে পড়বেন আপনিও

বিবাহের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছে বিবাহ বিচ্ছেদ কথাটি। প্রাচীনকালে নারীরা সব কিছু সহ্য করে নেবার চেষ্টা করলেও, এখনকার মেয়েরা কিন্তু খুব সহজে হার মানতে রাজি নয়। তাই শ্বশুরবাড়িতেও কিছু মনোমালিন্য হলেই বিবাহবিচ্ছেদ করতে যান নববধূরা। শিক্ষিত হওয়া অথবা স্বাবলম্বী হওয়া, এই সবকিছুই এখন মূল কারণ বিবাহ বিচ্ছেদের। কোন মেয়ে কিন্তু এখন পড়ে পড়ে মার খেতে চায় না। তবে বিবাহের মাত্র তিন মিনিটের মধ্যে কিন্তু ডিভোর্স হয় না কারোর। কিন্তু এমন একটি অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি কুয়েতে। বিশ্বের ইতিহাসে সবথেকে কম সময়ের দাম্পত্য এটি।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে যে, বিবাহের মাত্র তিন মিনিটের মাথায় এই ডিভোর্স এর পেছনে রয়েছে একটি বড় কারণ। বিয়ের আসরে নববধূ বেশ কয়েক বার হোঁচট খেয়ে ফেলেছিল। তাতে বর বাবাজি একটু ক্ষুন্ন হয়েছেন। বারবার নববধূ খাবার খেলে বরের মুখ থেকে বেরিয়ে আসে স্টুপিড কথাটি। ব্যাস সেখানেই শেষ হয়ে গেল তাদের দাম্পত্য জীবন। বিয়ের আসরে রেগেমেগে বিবাহবিচ্ছেদের পথে হাঁটলেন কনে। আদালতে বিয়ে করতে গিয়েছিলেন দম্পতি। তার বদলে বিবাহবিচ্ছেদ করে বেরিয়ে আসেন তারা।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম খলিজ টাইম জানাচ্ছে যে, এই ঘটনায় কনের রাগ প্রকাশ হলেও ঘরের মধ্যে কোনো প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়নি।তবে ইন্টারনেটে এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর বহু মানুষ কিন্তু কোন একে সমর্থন করেছেন। আবার অনেকেই বলেছেন যে, বর বাবাজি যে একজন বদমেজাজী ভদ্রলোক, দেখো তাড়াতাড়ি টের পাওয়া গেছে।তাই দেরি না করে বিয়ের আসরেই কনে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা একেবারেই যথাযথ। এক্ষেত্রে বিয়ের প্রথম রাতে বিড়াল মেরে ফেলা উচিত, এই প্রবাদটি বোধহয় একেবারেই যথাযথ ছিল।