দিলীপ ঘোষের উত্তরসূরি ত’বে কি “বাংলার মেয়ে”? কে হ’তে পা’রে’ন বিজেপির রাজ্য সভাপতি

একুশের নির্বাচনে বাংলা নিজের মেয়েকেই চেয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের প্রতি সমর্থন ছিল রাজ্যবাসীর। সেই কথা মাথায় রেখে এবার বিজেপিও নিজের “ঘরের মেয়েকে”ই খুঁজছে! শীঘ্রই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের তাদের মেয়াদ শেষ হতে চলেছে। সংঘের নিয়ম অনুসারে, এক ব্যক্তি কোনো এক পদে দুইবার নির্বাচিত হতে পারেন না। অতএব নতুন রাজ্য সভাপতির খোঁজে বিজেপি। শোনা যাচ্ছে রাজ্য সভাপতি পদে এবার বিজেপি কোনো এক মহিলা কর্মীকেই দায়িত্ব দিতে চলেছে।

বিজেপির অন্দরমহলে ইতিমধ্যে নতুন রাজ্য সভাপতির খোঁজ শুরু হয়ে গিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। আর এই পদের জন্য বিজেপির তরফে ২ মহিলা কর্মীর নাম উঠে এসেছে। একজন হলেন বিজেপির মহিলা মোর্চার নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়, অপরজন রাজ্যের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদিকা এবং বর্তমান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। প্রসঙ্গত, রাজ্য শাসকদলের অভ্যন্তরে মহিলাদের ক্ষমতায়ন বিবেচনা করেই কার্যত এবার রাজ্যের পথে হাঁটছে বিজেপি।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে তৃণমূল দলের যুব নেত্রী পদে রয়েছেন সায়নী ঘোষ। মহিলা মহলে তাই তৃণমূলের অবাধ বিচরণ হয়ে গিয়েছে। অপরপক্ষে বিজেপি নেতৃত্বরা বরাবর মহিলাদের বিরুদ্ধে কুৎসিত মন্তব্য করে গিয়েছেন! এবার মহিলাদের সমর্থন পেতে তাই দলের মহিলা কর্মীদের উপরেই ভরসা রাখছে কেন্দ্রীয় শাসক দল। এমতাবস্থায় দলের হাল ধরতে পারেন মহিলারাই।

আগামী দিনে বিজেপি রাজ্য সভাপতি কে হবেন? এই নিয়ে আপাতত বিবেচনা করছে দল। প্রসঙ্গত, লকেট এবং দেবশ্রীর মধ্যে কিন্তু দলের মধ্যে দেবশ্রীর গুরুত্ব লকেটের তুলনায় কিছুটা হলেও বেশি। দেবশ্রী কার্যত সংঘের ঘরের মেয়ে। কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী লোকসভা কেন্দ্রের ২টি আসনে জয়লাভ করেছেন। অপরপক্ষে লকেট চট্টোপাধ্যায় একুশে নির্বাচনে বিজেপির পরাজিত প্রার্থী।