গণতন্ত্র হত্যা করেছে বিজেপি, প্রতিবাদ চলবে, কৃষক বিল নিয়ে সোচ্চার হলেন মমতা ব্যানার্জি

ফাইল ফটো

রবিবার সংসদের বাদল অধিবেশনে কেন্দ্রের প্রস্তাবিত কৃষি বিল সম্পর্কে বিরোধীদের মধ্যে রীতিমতো হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। সোমবার রাজ্য সভার অধিবেশন শুরু হতেই, বিরোধী আট জন সাংসদকে আগামী এক সপ্তাহের জন্য রাজ্যসভা থেকে বহিষ্কার করে দেন চেয়ারম্যান এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু। এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, দেশে স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে বিজেপি।

সোমবার একটি টুইট বার্তায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের উদ্দেশ্যে একরাশ ক্ষোভ প্রকাশ করে লিখেছেন, রাজ্যসভায় কৃষকদের স্বার্থ রক্ষার উদ্দেশ্যে লড়াই করেছিলেন আট জন সাংসদ। স্বৈরাচারী সরকার গণতন্ত্রের অবমাননা করে তাদের সাসপেন্ড করল। যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রকে কটাক্ষ করে লিখেছেন, এই সরকার গণতন্ত্রের নিয়ম এবং নীতিকে সম্মান করে না।

কেন্দ্রীয় সরকারকে ফ্যাসিবাদী সরকার হিসেবে সম্বোধন করে মুখ্যমন্ত্রী হুঁশিয়ারি, এই সরকারের কাছে তৃণমূল মাথা নোয়াবে না। বরং সংসদে উপস্থিত থেকে এবং রাস্তায় নেমে এই ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবে তৃণমূল। উল্লেখ্য গতকাল, রাজ্যসভায় নয়া কৃষি বিল সম্পর্কে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে আট জন সাংসদ ডেপুটি চেয়ারম্যানের প্রতি অসম্মান প্রকাশ করেছেন বলে অভিযোগ তোলেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু।

সাংসদদের আচরণে ক্ষুব্ধ চেয়ারম্যান সোমবার সকালে রাজ্য সভার অধিবেশন শুরু হতেই তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন ও দোলা সেন, আপের সঞ্জয় সিং, কংগ্রেসের রাজু সাতাব, সইদ নাজির হুসেন ও রিপুন বোরা এবং সিপিআইএমের কে কে রাগেশ ও ইলামারান করিমকে আগামী সাত দিনের জন্য সাসপেন্ড করে দেন। চেয়ারম্যানের অভিযোগ, ওই দিন তাকে রীতিমত শারীরিক নিগ্রহের হুমকি দেন সাংসদেরা। পাশাপাশি, সংসদের আইন অমান্য করে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন তারা। ফলে, সংসদের অবমাননার দায়ে আগামী সাত দিনের জন্য সাসপেন্ড করা হয় সাংসদদের।