ড্রাগ চ্যাটে উঠে জ্বলজ্বল করছে দীপিকার নাম, সমন পাঠাতে তৈরি হচ্ছে NCB

সুশান্তের মৃত্যুর পর মাদকচক্র জড়িয়ে থাকার কারণে একের পরে এক উঠে আসছে বড় বড় অভিনেতা অভিনেত্রীদের নাম।ইতিমধ্যেই রিয়া চক্রবর্তী এবং তার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী কে মাদক চক্র জড়িত থাকার কারণে গ্রেফতার করা হয়েছে। সারা আলি খান, শ্রদ্ধা কাপুরের পর এবার উঠে এলো দীপিকা পাডুকোনের নাম। রিয়া চক্রবর্তী র হোয়াটসঅ্যাপ নিয়ে তদন্ত করতে গিয়ে গোয়েন্দাদের হাতে উঠে এসেছে আরও অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তারা দেখেন যে ঝরা সাহাবলি একজন মহিলার সঙ্গে নিয়মিত কথা হত রিয়ার। তাদের সঙ্গে ড্রাগের বিষয়েও কথা বলতে দেখা গেছে।

এ ভাষার সঙ্গে একটি ওয়াট্সএপ গ্রুপে এ মন দুজনকে থাকতে দেখা গেছে যাদের নাম ছিল D ও K। এই D অর্থাৎ দীপিকা এবং K অর্থাৎ কারিশমা।কারিশমা অর্থাৎ কারিশমা কাপুর নয়, কারিশমা নামের মেয়েটি হল একটি ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্টে এজেন্সি কর্মী। ইনি দীপিকার ম্যানেজার বলেও জানা গেছে।

এই সূত্রে জড়িত থাকার কারণে মঙ্গলবার কারিশমাকে তরফ করেছিল নারকোটিস বিউরো।চলতি সপ্তাহে দীপিকা পাডুকোনকে তলব করা হবে বলে জানা গিয়েছে সূত্র থেকে।রিয়া চক্রবর্তীর ফোন থেকে চ্যাট থেকে জানতে পারা গেছে যে, দীপিকা পাডুকোন একটি বিশেষ ধরনের ড্রাগ চাইছেন। তা নিয়ে শুরু হয়েছে কথোপকথন। দীপিকা পাডুকন,সারা আলি খান এবং শ্রদ্ধা কাপুর এর পর আর কার নাম উঠে আসতে চলেছে এই মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার জন্য, তা দেখা একমাত্র সময়ের অপেক্ষা।

জেরার মুখে পড়ে রিয়া চক্রবর্তী আরো জানিয়েছিলেন যে, রকুল প্রীত সিং এবং সিমন খাম্বাত্তা ড্রাগ নিতেন।এদিকে রিয়া চক্রবর্তীর মামলা তদন্ত করতে গিয়ে গোয়েন্দারা আরো দেখেছেন যে এর সঙ্গে আন্তর্জাতিক স্তরের যোগ রয়েছে।রিয়া চক্রবর্তী জানিয়েছেন যে,দুবাইয়ের পাচারকারীদের কিংবা জঙ্গি সংগঠন গুলির মধ্যে বিভিন্নভাবে ঢুকে যাচ্ছে ভারতবর্ষে। প্রতি কেজি মারিযুনার দাম হল ৮ লক্ষ টাকা।