অক্টোবরেই গোটা দেশে দেওয়া হবে করোনার টিকা, পরিকল্পনা শুরু রাশিয়ার

রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণার কাজ প্রায় শেষের দিকে। এই মুহূর্তে ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। ইতিমধ্যেই রুশ প্রশাসন দাবি করেছে, ভ্যাকসিনের অনুমোদন এখন শুধু কিছু সময়ের অপেক্ষা। ১০ই আগস্টের মধ্যে বাজারে ভ্যাকসিন আনার দাবি করেছে রাশিয়া। এবার অক্টোবর মাসে “মাস ভ্যাকসিনেশন” চালু করার দাবি করছে রাশিয়া।

উল্লেখ্য, রাশিয়ার মস্কো শহরের ভ্যাকসিন গবেষণা সংস্থা “গামালেয়া ইনস্টিউ”এর সদস্যেরা এই করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন তৈরি করেছেন। ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে “ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড” কর্তৃপক্ষকে। আগস্টে অনুমোদন পেয়ে সেপ্টেম্বর মাস থেকে ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করা যেতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

রাশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাশকো জানিয়েছেন, অক্টোবর থেকে “মাস ভ্যাকসিনেশন”এর মাধ্যমে দেশের চিকিৎসক এবং শিক্ষকদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। আগস্টেই শর্তসাপেক্ষে অনুমোদন পেতে চলেছে রাশিয়ান করোনা ভ্যাকসিন। এতে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলাকালীনই ভ্যাকসিন ব্যবহার করা যাবে। “রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড”এর প্রধান ক্রিমিল দিমিত্রিভ ভ্যাকসিন সম্বন্ধে যথেষ্ট আশাবাদী।

দিমিত্রিভের মতে, মহাকাশ গবেষণার ক্ষেত্রে “স্পুটনিক” মহাকাশযান বানিয়ে যেমন বিশ্বে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল রাশিয়া, সেরকমই রাশিয়ার আবিষ্কৃত ভ্যাকসিন এবার সারা বিশ্বকে মহামারীর বিরুদ্ধে শক্তি যোগাবে। তবে রাশিয়ার ভ্যাকসিন সম্পর্কে যথেষ্ট সন্দেহবাদী বিশ্বের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তাদের বক্তব্য, তাড়াহুড়ো করে ভ্যাকসিন বার করতে গিয়ে, ভ্যাকসিনের নিরাপত্তা এবং কার্যক্ষমতার প্রতি যেন কোনো আপস না করা হয়।