করোনা ভ্যাকসিন টেস্ট ভারতীয় বাঁদরের উপর, মিলেছে সাফল্য, বাঁচার পথ দেখালো চীন

মারন ভাইরাস কোভিড ১৯ মাত্র চার মাসে যেভাবে বিশ্বকে শেষ করার পথে এগিয়েছে তাতে নতুন করে কিছুই বলার অপেক্ষা থাকে না। তবে এই মারণ ভাইরাসের টিকাকরণ আবিষ্কার করতে এককথায় আপ্রাণ চেষ্টা করছেন গবেষকরা। কিন্তু সফল হচ্ছেন না। তবুও যেভাবে করোনায় লাফিয়ে লাফিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়েছে তাতে মারণ ভাইরাসের দাপটের মধ্যেই এক নতুন খবর এল, সুখবরও বলা যায়। চিনের গবেষকরা এবার করোনা মুক্তির উপায় বাতলে দিলেন। আবিষ্কার করলেন এক টিকার, যা নাকি ভারতীয় এক বাঁদরের শরীরে প্রয়োগ করে সাফল্য এসেছে।

চিনের একটি সংস্থা সিনোভ্যাক বায়োটেক পিকোভ্যাক নামের একটি ভ্যাক্সিন আবিষ্কার করেছে। যেটি প্রথম বাঁদরের শরীরে প্রয়োগ করে সাফল্য এসেছে। তবে পরীক্ষামূলক ভাবে ব্যবহারের পর গবেষকরা জানিয়েছেন প্রথমে বাঁদরদের শরীরে ওই ভ্যক্সিন প্রয়োগ করা হয়, তারপরে তাঁদের শরীরে করোনা সংক্রমন ছড়ানো হয়, তাতে দেখা যায় বাঁদরদের শরীরের করোনা নেগেটিভ এসেছে।তবে যাদের শরীরে এই ভ্যাক্সিন দেওয়া হয়নি তাঁদের নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হতে দেখা গেছে।

জানা গিয়েছে এই টিকা ইঁদুরের শরীরে প্রয়োগ করে সাফল্য পাওয়া গেছে। এবার এটি মানব দেহেও প্রয়োগ করলে সফলতা মিলবে। ইতালির তরফে টিকা আবিষ্কার করে এমনই দাবি করা হয়েছে। তারপর থেকে বিশ্বজুড়ে আলোড়ন তৈরি হয়েছে।

অন্যদিকে আবার অক্সফোর্ড জোনার ইনস্টিটিউট-এর তরফে এই ভ্যাক্সিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল দেওয়া শুরু হয়েছে এবং চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে ভ্যক্সিন বিশ্বজুড়ে চালু হতে পারে বলেও সম্ভাবনা প্রকাশ করা হয়েছে।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন