মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে তুমুল সংঘর্ষ পুলিশ ও কৃষকদের মধ্যে, কার্যত রণক্ষেত্র হরিয়ানা

কেন্দ্রের প্রণীত নতুন তিনটি কৃষি বিল নিয়ে উত্তাল সারাদেশ। কেন্দ্র এবং কৃষক সংগঠনের এই তরজায় কার্যত রাজনৈতিক মহল বেশ সরগরম। দিল্লি হরিয়ানার মাঝে অবস্থিত সিঙ্ঘু সীমান্তে অবস্থান-বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন কৃষকেরা। কেন্দ্র এবং কৃষক সংগঠনের তরফের অন্তত আট দফা বৈঠকের ফলাফল রীতিমতো ব্যর্থ হয়েছে। এমতাবস্থায় হরিয়ানার কারনালে মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টারের সফর ঘিরে রীতিমতো উত্তাল হয়ে উঠলো কারনাল।

এদিন মনোহর লাল খাট্টারের সফরকে কেন্দ্র করে মুহূর্তের মধ্যেই এলাকায় রণক্ষেত্রের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে হাজির হয় পুলিশ। অশান্তি নিয়ন্ত্রণে আনতে গিয়ে পুলিশ এবং কৃষকদের মধ্যে রীতিমতো খন্ড যুদ্ধ বেঁধে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনতে কৃষকদের লক্ষ্য করে কাঁদানে গ্যাসও ছোঁড়ে পুলিশ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মনোহর লাল খাট্টার এদিন কেন্দ্রীয় কৃষি আইন নিয়ে কৃষকদের বোঝাবার জন্যেই কারনালে এসেছিলেন।

এদিকে কৈমলা গ্রামে তার হেলিকপ্টার এদিন ল্যান্ড করার সঙ্গে সঙ্গেই প্রায় ১০০ জন কৃষক মুখ্যমন্ত্রীর হেলিপ্যাডের কাছে মিছিল করে চলে চলে এসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। প্রায় ১৫০০জন পুলিশ এদিন মুখ্যমন্ত্রীর কিষাণ মহাপঞ্চায়েত কর্মসূচির উদ্দেশ্যে কৈমলা গ্রামে মোতায়েন করা ছিল। মুখ্যমন্ত্রীর সুরক্ষার্থে সাতটি নাকা পয়েন্টে কড়া নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরি করা হয়।

এত প্রবল নিরাপত্তা সত্ত্বেও এদিন সকল বাধা টপকে মুখ্যমন্ত্রী হেলিপ্যাড পর্যন্ত পৌঁছে যান কৃষকেরা। কৃষকদের বিক্ষোভ সামাল দিতে জলকামান ছোঁড়া হয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টারের নেতৃত্বে আয়োজিত এ দিনের কিষাণ মহাপঞ্চায়েত কর্মসূচিতে অন্তত দুই হাজার কৃষকের উপস্থিত থাকার কথা ছিল। বিজেপি এবং শরিক দল জেজেপির বহু নেতা এদিন ওই গ্রামে উপস্থিত হয়েছিলেন। বিক্ষুব্ধ কৃষকেরা তাদের ঘিরেও বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।