সংক্র’ম’ণ ঠে’কা’তে চাইনিজ নাগরিকদের ধা’ত’ব বাক্সে ব’ন্দি করছে চীনা প্রশাসন

আবার ভারতের মতো চিনেও মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে করোনা ভাইরাস। ইতিমধ্যেই চিন সরকারের তরফ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে, কিন্তু তাও যেনো লাগাম লাগাতে পারছে না করোনার ওপরে। নিভৃতবাস, লকডাউন, বিচ্ছিন্ন বাস সব ধরনের পন্থা অবলম্বন করার পরেও কোনো ইতিবাচক প্রভাব দেখা যায় নি। আর কিছুদিনের মধ্যেই বেজিং এ আয়োজিত হতে চলেছে শীতকালীন অলিম্পিক।

তার আগেই এইভাবে করোনার আবার মাথা চাড়া দিয়ে ওঠা নিয়ে চিন্তায় চিন সরকার। তাই এবার নতুন পন্থা অবলম্বন করেছে চিন সরকার, যাতে কোনোভাবেই আর সংক্রমণ বাইরে না সতে পারে। সক্রামিত রোগীদের এবার বন্ধ করে রাখা হয়েছে ধাতব বাক্সে। এমনই ছবি প্রকাশ্যে এসেছে নেট দুনিয়ায়। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, যারা যারা কোভিডে আক্রান্ত হয়েছে তারা সেই ধাতব বাক্সের মধ্যে রয়েছে। নিজেকে কোয়ারিন্টিন করার এটি এক নতুন পদ্ধতি, যা বেছে নিয়েছে চিন সরকার।

শোনা যাচ্ছে চিন সরকার এই কোভিড বিধির বিভিন্ন ক্ষেত্রে পরিবর্তন করেছে। ধাতব বাক্সের মধ্যে রয়েছে একটি খাট, টয়লেট, জলের বোতল। সূত্রের মাধ্যমে জানা যাচ্ছে চিনের শাংচি প্রদেশের জিয়ান শহরে এই ধরনের পন্থা চালু করা হয়েছে। ছোট বাচ্চা থেকে শুরু করে, গর্ভবতী মহিলা, বৃদ্ধ মানুষজন সবাইকে ধাতব বাক্সের মধ্যেই রাখা হয়েছে। এই ধরনের সিদ্ধান্তে দারুণ ভাবে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে বলেও শোনা যাচ্ছে।

চিনের করোনা পরিস্থিতি যেনো ফের আগের মতোই দেখা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে জিয়ান শহরের ২ কোটি বাসিন্দাকে বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বাজার ঘাটে বেরোনোর ক্ষেত্রেও দেওয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। করোনা নিয়ে এখন দারুণভাবে কড়া ব্যবস্থাপনা করছে চিন সরকার। যদি একটি বিল্ডিং এর একজন সংক্রামিত হয়, তাহলে সেই বিল্ডিং এর সবাইকেই কোয়ারেন্টিন থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।