চীন প্রীতি তবে কি শেষ! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধিদের বেজিংয়ে দেওয়া হলো না ঢুকতে

বিগত প্রায় এক বছর ধরে সারাবিশ্বে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনা। বিশ্বের প্রথম সারির দেশ গুলিও এই অভিশাপ থেকে এখনো মুক্ত হতে পারেনি। এহেন অতিমারীর উৎসস্থল যে চীন, বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তই তা জানে। তবে চীন কিন্তু বরাবরই তা নাকচ করে এসেছে। চীনের উহান প্রদেশ থেকেই ছড়িয়ে পড়েছিল করোনা। যে করোনা ভারে এখনো জর্জরিত পৃথিবী। তবে এতদিন কিন্তু করোনার উৎস স্থল সেই চীনেই করোনার প্রকৃত উৎস সম্পর্কে গবেষণা চালানো সম্ভব হয়নি।

এই নিয়ে বিশ্বের সমক্ষে প্রবল বিতর্কের সম্মুখীন হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। উল্লেখ্য, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে চীনের “মধুর সম্পর্ক” নিয়ে এতদিন হুকে দুষেছে বিশ্ব। তবে সেই মধুর সম্পর্কের হয়তো এবার ইতি হলো। কারণ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি বিশেষজ্ঞ দল সম্প্রতি চীনে করোনার উৎস সম্পর্কে গবেষণা চালানোর জন্য উহান প্রদেশের ঢোকার চেষ্টা চালায়। তবে হু কর্তৃপক্ষের সেই পরিকল্পনা ব্যর্থ করে দিয়েছে চীন।

সূত্রের খবর, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফ থেকে দশ জনের একটি বিশেষজ্ঞ দল চীনে পাঠানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। এর মধ্যে থেকে দুইজন চীনের উদ্দেশ্যে রওনাও দেন। তবে শেষমেষ চীনা প্রশাসনের তরফ থেকে অনুমোদন না মেলায় সেই দেশে ঢুকতেই পারলেন না বিশেষজ্ঞ টিমের সদস্যরা। যতদূর জানা গেল, ওই দুইজন বিশেষজ্ঞের মধ্যে একজন বাধা পেয়ে পুনরায় ফিরে এসেছেন।

অপরজনও চীনে প্রবেশ করতে না পেরে অন্য দেশে চলে গিয়েছেন। করোনার উৎস সম্পর্কে গবেষণা করতে না দেওয়ায় স্বভাবতই চীনের প্রতি ক্ষুব্ধ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্তৃপক্ষ। হু প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস এর পরিপ্রেক্ষিতে চীনের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, হু এর বিশেষজ্ঞ দলকে চিনে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়নি। চীনের এই কার্যকলাপে হতাশ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা! এ প্রসঙ্গে বেজিংয়ের শীর্ষ আধিকারিকদের সঙ্গে কথাও বলেছেন হুয়ের প্রধান।