তবে কি এবার দলবদল! বনির কথায় তৃণমূল ছেড়ে কি পদ্মফুলে আসবেন কৌশানি?

আরো একবার আঘাত পেতে চলেছে তৃণমূল শিবির। কিছুদিন আগেই অভিনেতা বনি সেনগুপ্ত বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন, এমন কথা শুনতে পাওয়া গিয়েছিল। বনি সেনগুপ্ত এর বিজেপিতে যোগদানের জল্পনা কল্পনার মধ্যে আরো একবার গুঞ্জন উঠল যে, এবার নাকি গেরুয়া শিবিরের নাম লেখাতে চলেছেন বনি সেনগুপ্তের বিশেষ বন্ধু কৌশানী মুখার্জী। এ রকমই একটি গুঞ্জনে সরগরম হয়ে উঠেছে বিনোদন জগত সহ রাজনৈতিক জগত।

অতিসম্প্রতি অভিনেতা সোহেল দত্তের সঙ্গে ক্যামেরাবন্দি হতে দেখা যায় বনি সেনগুপ্ত কে। এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় গুঞ্জন ছড়িয়ে যায়। এর আগেও রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় যখন তৃণমূলে ছিলেন, তখন এক অভিনেতার জন্মদিনের পার্টিতে বিজেপি নেতার শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে দেখা হয় রুদ্রনীল ঘোষের।ঠিক তার পরেই বিজেপিতে যাবার সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয় আর রাজিব এবং রুদ্রনীল দুজনেই।

সেই জন্মদিন পার্টি ছিল সোহেল দত্তের। তখন থেকেই আস্তে আস্তে স্পষ্ট হয়ে যায় রাজনৈতিক অবস্থান। তাই সোহেল দত্তের সঙ্গে ক্যামেরা শেয়ার করার পর যদি বনি সেনগুপ্ত যোগদান করে বিজেপিতে, তাহলে খুব একটা অবাক হবেন না কেউ। অন্যদিকে বনি যে তার কাছের বান্ধবী কৌশানি কেও তার দিকে টেনে নেবেন সেটাও বলাই বাহুল্য।সূত্র অনুসারে খবর পাওয়া যাচ্ছে, উত্তর কলকাতার কোন একটি আসনে বিজেপির তরফ থেকে প্রার্থী করা হতে পারে বনি সেনগুপ্ত কে। তবে এই বিষয়ে এখনো কোন কথা বলতে শোনা যায়নি বনি অথবা কৌশানি কে।

কিছুদিন আগেই ব্রাত্য বসু এবং কুণাল ঘোষের হাত ধরে তৃণমূলে যোগদান করেছিলেন কৌশানি। তার সঙ্গে তার হবু শাশুড়ি মা অর্থাৎ বনি সেনগুপ্ত এর মা পিয়া সেনগুপ্ত যোগদান করেন তৃণমূলে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ক্যামেরাবন্দি হতে দেখা যায় কৌশানি কে। ঘাসফুলের পতাকা হাতে নিয়ে কৌশানি সেদিন বলেছিলেন, আমি ছোট থেকেই মমতা বন্দোপাধ্যায়ের খুব ভক্ত। শুধু আমি নয় আমার গোটা পরিবার তৃণমূল সমর্থক। আজ এই দলে যোগ দেওয়া আমার কাছে ভাগ্যের ব্যাপার। আমি কখনো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ছাড়তে পারবো না। এতকিছুর পরেও যদি শুধুমাত্র বনি সেনগুপ্তর কথাতে বিজেপিতে যোগদান করে কৌশানি, তাহলে সত্যিই সেই কথাটাই সত্যি হয়ে যাবে, খেলা হবে।