গেরুয়া শিবিরের সবথেকে গ’রি’ব প্রা’র্থী চন্দনা বাউরি জিতেছেন, জেনে নিন তা’র কা’হি’নী

গতকাল বিধানসভা ভোটের নির্বাচনের ফলাফল বেরিয়ে গেছে। চারদিকে রয়েছে শুধুমাত্র তৃণমূলের জয়জয়কার। বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করেছে তৃণমূল সরকার কে। আরো পাঁচ বছরের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে নির্বাচিত হলেন। তবে এর মধ্যেই শালতোড়া থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন বিজেপির দরিদ্র পাত্রী চন্দনা বাউরী।

তিনি তৃণমূল প্রার্থীকে চার হাজার ভোটে পরাজিত করে বিধায়ক নির্বাচিত হলেন। তার স্বামী একজন পেশায় রাজমিস্ত্রি। দৈনিক আয় মাত্র 400 টাকা। তার সম্পত্তি রয়েছে তিনটি ছাগল তিনটি গরু, একটি মাটির বাড়ি। এখনো পর্যন্ত ভোটের সবথেকে গরীব প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

মনোয়নপত্র হলফনামায় তিনি লিখেছেন যে, তার ব্যাংকে একাউন্ট আছে সেখানে রয়েছে মাত্র ৩০ হাজার টাকা। তার স্বামীর সম্পত্তি রয়েছে ৩০ হাজার টাকা। অর্থাৎ সবমিলিয়ে তাদের সাকুল্যে সম্পত্তি ৬০ হাজার টাকা। এই দরিদ্র প্রার্থী বাঁকুড়া শালতোড়া অঞ্চলের প্রত্যন্ত একটি গ্রামে কাঁচা বাড়িতে থাকেন।

সংবাদমাধ্যম থেকে জানতে পারা কাছে যে, তার বাড়িতে পানীয় জলের কোন ব্যবস্থা নেই। ঘরের আসবাবপত্র বলতে রয়েছে একটি টিনের বাক্স। বাচ্চাদের পড়ার জন্য একটি ছোট টেবিল। চিরকালই পড়াশোনায় ভালো ছিলেন এই বিজেপি প্রার্থী।

হঠাৎ করে বাবা মারা যাবার ফলে মাধ্যমিক পাস করেই তাকে বিয়ে করতে হয়। তিনটি সন্তান রয়েছে শ্রবণ চন্দনা দম্পতির। চন্দনার স্বামী বিজেপির ব্লক করবি হিসেবে রাজনীতি করতেন। সেই কারণেই তার স্ত্রী চন্দনাকে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন বিজেপি। চারিদিকে যখন তৃণমূলের জয় জয়কার, তার মধ্যেই নীরবে নির্বাচিত হলেন বিজেপির এই দরিদ্র প্রার্থী।