করোনা আবহে বাংলার প্রাপ্য ৪১৭ কোটি টাকা মিটিয়ে দিল কেন্দ্র, সাময়িক স্বস্তি রাজ্যের ভাঁড়ারে

দেশের পরিস্থিতি সংকটজনক। এমনিতেই আর্থিক বৃদ্ধি নেই। তারওপরে আবার করোনার জেরে লগ্নি বন্ধ রয়েছে। তাই দেশের আয়ের রাস্তা বন্ধ হয়েছে। তাই রাজ্যের অবস্থাও বেশ সঙ্গীন। কিন্তু কেন্দ্রের কাছ থেকে রাজ্য যা প্রাপ্য টাকা পায় তা মিটিয়ে দিতে বার বর অনুরোধ করা হলেও তাতে আমল দেয়নি কেন্দ্র। কিন্তু অবশেষে রাজ্যের সেই কথায় গুরুত্ব দিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার কেন্দ্র ও রাজ্যের বৈঠকের পর রাজ্যের ৪১৭ কোটি প্রাপ্য টাকা মেটাবে বলে জানিয়ে দিল।

তবে পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও আরও চোদ্দটি রাজ্য তাঁদের বকেয়া টাকা পেয়েছে। তারমধ্যে বাংলার টাকা সবথেকে বেশি। তবে সোমবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠকের পরেই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন সোমবার রাতে ট্যুই করে পঞ্চদশ পে কমিশনের সুপারিশ মেনে কেন্দ্রীয় সরকার ১১ মে রাজ্যগুলিকে প্রাপ্য টাকা কেন্দ্র দিচ্ছে বলে জানান। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “করোনার এই সংকটকালে রাজ্যগুলির সংস্থান বাড়াতে সাহায্য করবে এই অর্থ।” অন্ধ্রপ্রদেশ, অসম, হিমাচল প্রদেশ, মণিপুর, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, সিকিম, উত্তরাখণ্ড, তামিলনাড়ু, ত্রিপুরার মতো রাজ্যগুলিকেন্দ্রের টাকায় উপকৃত হয়েছে।

তবে প্রথম পর্বে কেন্দ্র রাজ্য সরকারকে ৪১৭ কোটি ৭৫ লক্ষ দিয়েছিল। দ্বিতীয় পর্বে আবারও দিল কেন্দ্র। তবে বাংলার আর্থিক ভার কতটা কমবে তাও সন্দেহের বিষয়। এমনিতেই রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলার জন্য একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে রাজ্য সরাকর, তাই কেন্দ্রের এই আর্থিক সাহায্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হয়েছিল বলেই মনে করা হচ্ছে।