ব্লাউজ হীন শাড়িতে জড়িয়ে রেখেছেন নিজেকে, ভাইরাল ঋতুপর্ণার ছবি

পরিচালক প্রভাত রায়ের পরিচালিত শ্বেত পাথরের থালা সিনেমা দিয়ে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর পা রাখা সিনেমা জগতে। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর। তারপরে তার সিনেমা জগতে নানান সিনেমায় কাজ করা এবং দর্শকদের কাছে প্রশংসিত হওয়া। বাংলা সিনেমা জগতে একসময় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত একাই নায়িকা হিসেবে কাজ করে গিয়েছেন কেউ তাকে টেক্কা দিতে পারেনি। সবার কাছে তিনি অত্যন্ত পারদর্শী, কারন অভিনেত্রী দরিদ্র মেয়ে থেকে শুরু করে চাকরানী আবার বড়লোক বাড়ির অহংকারী মেয়ে সমস্ত চরিত্রেই তাকে খুব নিখুঁতভাবে অভিনয় করতে।

সম্প্রতি অভিনেত্রী ঋতুপর্ণাকে আমরা রাজকাহিনী সিনেমাতে একদম অন্য চরিত্রে অভিনয় করতে দেখেছি। তার গাছ কাহিনী সিনেমার অভিনয় মাধ্যমে সবাইকে অবাক করে দিয়েছিল। এছাড়াও রয়েছে তার বোল্ড রুপে অভিনয় করা যেমন মুক্তি সিনেমা তার অভিনয়। এককথায় বলতে গেলে তিনি সব চরিত্রেই একদম পারফেক্ট। প্রতিবছর পূজার ফ্যাশন নিয়ে সব সময় তাকে দেখা যায়। এবছরেও অভিনেত্রী ঋতুপর্ণাকে দেখা গিয়েছে পুজোর ফ্যাশন নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা একটি ফটো শেয়ার করেছেন তার সোশ্যাল হ্যান্ডেল। ফটোশুট হয়েছে সিঙ্গাপুরে , ছবিতে দেখা গিয়েছে অভিনেত্রী সাবেকি বেশে পরনে তার সাদা লাল পাড় শাড়ি ও কপালে একটি বড় লাল টিপ। আগেকার দিনের মহিলারা যেভাবে শাড়ি পরতে সেভাবেই শাড়ি পরেছেন ঋতুপর্ণা অর্থাৎ ব্লাউজ ছাড়াই। সাহসিকতার সাথে এই ছবিটিতে দেখা গিয়েছে তার উন্মুক্ত পিঠ ও তার মুখে হাসির ঝলক।

অভিনেত্রী ,তার পূজোর প্ল্যান নিয়েও কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন এবারের পূজোতে কলকাতার ফুচকা খাওয়া হবেনা, পরিবারের সাথে পুজো দেখা হবেনা। কারণ এইবারে দুর্গাপূজা তিনি সিঙ্গাপুরে থাকবেন, সেখানেই সপ্তমী লাঞ্চ ও অষ্টমীর ডিনারের মাধ্যমে পুজো উদযাপন করবেন। কারন সে এখন শতরূপা সান্যাল এর প্রযোজনায় এবং বিশ্বনাথের পরিচালিত বাঁশরী সিনেমায় অভিনয় করতে ব্যস্ত আছেন। তার বিপরীতে রয়েছেন অনুরাগ এই প্রথমবার এই জুটিকে দেখা যাবে সিনেমা জগতে। অভিনেত্রী আরও বলেন, কাজ আমার প্রথম প্রেম তাই সিনেমার শুটিং এর জন্য, এবারের পূজোতে সেরকমভাবে আনন্দ করা হবেনা।