হাথরাস কাণ্ডে অভিযুক্তদের সমর্থনে সভা বিজেপি নেতার

উত্তর প্রদেশের যোগী রাজ্যে নয়া বিতর্ক। উন্নাওয়ের মতো আবারো বিজেপি কর্মী সমর্থকরা হাথরাস কান্ডে অভিযুক্ত উচ্চবর্ণের চার ধর্ষকের সমর্থনে সভার আয়োজন করা হলো। স্থানীয় বিজেপি নেতা রাজবীর সিং পেহেলবানের নেতৃত্বে বেশ বড়সড় সভার আয়োজন করা হলো অভিযুক্তদের সমর্থনে। উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশে এই ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও উন্নাও গণধর্ষণ এবং খুনের মতো নৃশংস কান্ডের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সমর্থনে উত্তরপ্রদেশে মিছিল বের করেছিল শাসক দল।

এবার বিজেপি দলের প্রাক্তন বিধায়ক তথা বিজেপি নেতা রাজবীর সিং পেহেলবান তার নিজের বাড়িতেই অভিযুক্তদের সমর্থনে সভার আয়োজন করল। সমর্থনকারীদের দাবি, অভিযুক্তদের জন্য সুবিচার চাই, সেই উদ্দেশ্যেই এই সভার আয়োজন করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, হাথরাস কান্ডের সঙ্গে যে চারজনের নাম জড়িয়েছে তারা প্রত্যেকেই তথাকথিত “উচ্চবর্ণ” এর লোক। ধর্ষকদের সমর্থনকারী ওই বিজেপি নেতার দাবি, উত্তরপ্রদেশের সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার উদ্দেশ্যেই ঐ চারজনকে মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হচ্ছে।

ওই বিজেপি নেতার দাবি, তিনি তার নিজের উদ্যোগেই এই সভার আয়োজন করেছেন। ওই চারজনের বিরুদ্ধে কোনো প্রত্যক্ষ প্রমাণ নেই। সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করার উদ্দেশ্যেই ঐ চারজনের বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ আনা হয়েছে। তিনি এও জানিয়েছেন, উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের অনুমতি নিয়েই নাকি তারা এই সভার আয়োজন করেছেন। আয়োজকদের পাল্টা দাবি, ওই নির্যাতিতা মা এবং ভাই তাকে খুন করেছে। উল্লেখ্য, এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন উচ্চবর্ণের বহু মানুষ।

উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশের প্রশাসন করোনার দোহাই দিয়েশনিবার পর্যন্ত বিরোধী দলের সদস্য এবং মিডিয়াকে নিজের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দিতে বাধা দিচ্ছিল। এমনকি হাথরাসের সীমানাও সিল করে দেওয়া হয়েছিল। ২৪ ঘন্টার মধ্যেই সেখানে অভিযুক্তদের সমর্থনে এত বড় সভায় অনুমোদন দেওয়া হলো! এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে স্বভাবতই প্রশাসনের ভূমিকায় প্রশ্ন উঠছে। দায় এড়িয়েছে প্রশাসনও। স্থানীয় জয়েন্ট ম্যাজিস্ট্রেট প্রেমপ্রকাশ মীনার দাবি, ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি কিছুই জানেন না।