সৌদি রাজপুত্রের গাড়িতে ডিম পেরেছে পাখি, বাচ্চা না হওয়া পর্যন্ত গাড়িতে চড়লেন না প্রিন্স

বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তি হিসাবে মুকেশ আম্বানি,টাটা বিরলার সঙ্গে এক সারিতে পরিচিত আছেন দুবাইয়ে রাজপুত্র শাহজাদা মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুন।স্বাভাবিকভাবেই অন্যান্য ধনী ব্যক্তিদের মত তার জীবনের প্রত্যেকটি পদে আছে আভিজাত্যের ছোঁয়া। তার ব্যবহৃত প্রত্যেক জিনিসেই রয়েছে ঐতিহ্যের ছাপ।তিনি প্রতিদিনের যে সমস্ত জিনিস ব্যবহার করেন সে গুলির নাম এবং দাম হয়তো অনেকেই জানেন না। বিশেষত বিশ্বের ধনী ব্যক্তিরা যে সমস্ত গাড়ি ব্যবহার করেন সেগুলোর দাম শুনলে সত্যি আশ্চর্য হয়ে যেতে হয়। মহম্মদ বিন রাশিদ বরাবরই তার বিলাসবহুল জীবন যাত্রার অভ্যাসের কারণে সংবাদের শিরোনামে উঠে এসেছেন, আবারো একবার সংবাদের শিরোনামে উঠে এলো তার নাম, তবে এবারের কারণটা একটু অন্যরকম।

সম্প্রতি মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম এর নতুন গাড়িতে বাসা বেঁধেছিল একটি পাখি। বিষয়টি প্রথমে কারো নজরে আসেনি।কিন্তু যখন ব্যাপারটা প্রত্যেকের নজরে এলো তখন দেখা গেল যে সেই পাখিটি তার বাসায় ডিম পেড়েছে। যেহেতু পাখি তার বাসায় ডিম পেড়ে ফেলেছে,সেহেতু সঙ্গে সঙ্গে বিলাসবহুল দামি গাড়ি ব্যবহার করা বন্ধ করে দিয়েছিলেন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন রশিদ। পাখির বাচ্চা গুলি কে বাঁচানোর জন্য তিনি বেশ কয়েকদিন গাড়িটি ব্যবহার করেননি।পাখি এবং তার ছানাদের যাতে কোনো রকম অসুবিধা না হয় তার জন্য সমস্ত রকম ব্যবস্থা তিনি নিয়েছিলেন।

কিছুদিন আগে এই সমস্ত ঘটনার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে একটি সংবাদ মাধ্যম। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে, কিভাবে পাখিটি গাড়ির মধ্যে বাসা বাঁধলো, তারপর কিভাবে আস্তে আস্তে সেখানে ডিম পেরেছে এবং কিভাবে ডিম ফুটে বাচ্চা বেরিয়েছে, এই পুরো দৃশ্যটি ভিডিও আকারে দর্শকদের কাছে তুলে ধরেছেন ঐ সংবাদমাধ্যম। এই ভিডিওটি শেয়ার করে প্রিন্স লেখেন যে,”জীবনের ছোট ছোট জিনিস মাঝে মাঝে অনেক সুখ এনে দেয়”।

প্রিন্সের এই ভিডিওটি শেয়ার হতে রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। প্রিন্সের এই কাজের জন্য রীতিমতো তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছে নেটিজেনরা। এই ধরনের মানবিক কাজকর্ম সকলের মন কেড়ে নিয়েছে সহজেই। এই ভিডিওটি দেখার পর অনেকেই বলেছেন যে, নিত্যদিনের জীবনে অনেক ছোটখাটো ঘটনাও মানুষের জীবনে আলাদা আনন্দ বয়ে নিয়ে আসতে পারে।