বাঙালি মানেই দুবেলা ভাত, নিজেই ডেকে আনছেন প্রাণঘাতী রোগ, ১০ বছরের গবেষণায় উঠে এলো তথ্য

বর্তমান ভারতে বেশিরভাগ মানুষ হাই ব্লাড সুগারের রোগে ভুগছেন।আজ থেকে ১০ বছর আগে একটি সমীক্ষা শুরু হয়েছিল ২১ টি দেশ জুড়ে ১ লক্ষ ৩০ হাজার লোকের উপর। সেই সমীক্ষা শেষ হতে লেগেছে ১০ বছর। সমীক্ষা শেষে গবেষকরা নিশ্চিত হয়ে বলছেন যে, ভারত সহ দক্ষিণ এশিয়ার বহু দেশের ভাত খাওয়ার অভ্যাস মানুষদের মধ্যে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি আরো বেশি করে বাড়িয়ে দিচ্ছে।ভবধারিণী বালাজি অফ দা পপুলেশন হেলথ রিসার্চ ইনস্টিটিউট, কানাডার হ্যামিলটন হেলথ সায়েন্স এবং ম্যাকমাস্টার ইউনিভার্সিটির গবেষকরা একসাথে এই গবেষণা করেছিলেন।

তাদের গবেষণা থেকে উঠে এসেছে এমন কিছু তথ্য যা থেকে জানা গেছে যে ডায়াবেটিস বিশেষত হচ্ছে ভাত থেকে। এই তথ্যগুলো চলতি মাসের ডায়বেটিক কেআর নামক একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।এই জার্নালে প্রকাশ হওয়া গবেষণায় গবেষকরা লিখছেন, সাদা চাল মিলে ছাটা হয়। এর ফলে চাল দেখতে সুন্দর হয়।কিন্তু চাকচিক্য বাড়াতে গিয়ে চালের উপরে লেগে থাকা ভিটামিন বি এর মত জরুরি পুষ্টিকর উপাদান চলে যায় চাল থেকে। গবেষকদের মতে,দক্ষিণ এশিয়ার একটি বড় অংশের ভেরি ভেরি হত ভিটামিনের ঘাটতি জনিত রোগ ছড়িয়ে পড়ার কারণ হলো এই মিলে ছাটা চাল।

এর পাশাপাশি গ্লাইসেমিক ইনডেক্স এর এই চাল এ ব্লাড সুগার বেড়ে যাচ্ছে। এই গবেষণার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল, ভারত চীন শহর এশিয়ার বিভিন্ন দেশ কে।ভারত এবং চীন ছাড়াও এই গবেষণার অন্তর্ভুক্ত ছিল উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ এবং দক্ষিণ আমেরিকার বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ। ব্রাজিল কেও এই ক্ষেত্রে সমান ভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১২ সালের একটি গবেষণা থেকে জানা যায় যে, প্রতিবার অতিরিক্ত ভাত খেলে ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা ১১ শতাংশ বেড়ে যায় মানুষের মধ্যে। এরপর সেই গবেষণা আরও বৃহত্তর পরিসরে করানো হয়। তাতেই প্রমাণিত হয়ে যায় যে,ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার মানুষদের ভাত খাবার অভ্যাস এর ফলে জিনগতভাবে এই ডায়াবেটিস মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে।