ফের দুর্যোগের মুখোমুখি হ’তে পা’রে বাংলা! তীব্র বৃষ্টি ও বন্যার স’ত’র্ক’তা জা’রি করলো নবান্ন

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের দাপট এখনো পুরোপুরি কাটিয়ে উঠতে পারেনি পশ্চিমবঙ্গ। উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলি এখনো জলের তলায়। এদিকে প্রকৃতি নতুনভাবে নিজের রুদ্ররূপ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গকে আক্রমণ করতে উদ্যত। আবহাওয়া দপ্তরের সতর্কবার্তা অনুযায়ী, বঙ্গোপসাগরের উপর আবার ঘনীভূত হচ্ছে নিম্নচাপ। যে নিম্নচাপের দরুন আগামী বৃহস্পতিবার থেকেই রাজ্যজুড়ে ফের ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হতে চলেছে।

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের দরুন আগামী ১০ই জুন থেকে টানা চারদিনের জন্য বৃষ্টিপাত শুরু হতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গে। তীব্র বর্ষণের জন্য আবার বন্যার সম্ভাবনাও রয়েছে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় ঢেউয়ের উচ্চতা বাড়বে বলে জানানো হয়েছে। অতএব উপকূলবর্তী অঞ্চলের মানুষরা ফের আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার থেকে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে প্রবল বর্ষণ শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে জোয়ারের দরুন জলস্ফীতিও বাড়বে। আসন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের মোকাবিলার জন্য নবান্নের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই কলকাতার পুর কমিশনার এবং রাজ্যের সব জেলাশাসকদের উদ্দেশ্যে সতর্কতাবাণী প্রেরণ করা হয়েছে। রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা এবং অসামরিক প্রতিরক্ষা দফতরকেও সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এরই মধ্যে গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া মৎস্যজীবীদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এছাড়াও সমুদ্র উপকূলবর্তী কাঁচা মাটির বাড়ির বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে নবান্ন। সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় নতুন করে বাঁধ নির্মাণের যে কাজ শুরু হয়েছিল, তাও আপাতত আসন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জন্য বন্ধ থাকছে।