পাবজি সহ ১১৮ অ্যাপ নিষিদ্ধ করায় বিপাকে বেজিং, ভারতের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ চিনের

টিকটকসহ ৫৯টি অ্যাপের পরে এবার পাবজিসহ ১১৮টি মোবাইল অ্যাপ বাতিলের মাস্টার স্ট্রোক দিল মোদি সরকার। ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং নিরাপত্তা রক্ষার্থে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় এই অ্যাপগুলিকে বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বলা বাহুল্য, এই অ্যাপগুলির বেশিরভাগ তাতেই চীনের বিনিয়োগ রয়েছে। অতএব ভারতের সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছে চীনা প্রশাসন।

চীনের বাণিজ্যমন্ত্রকের মুখপাত্র জাও ফেং ভারতে এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে “ভুল শোধরানো”র কথা বলেছেন। তিনি বলেন, ভারতের এই সিদ্ধান্তে চীনের বাণিজ্যে অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। চীনের দাবি, এই সমস্ত অ্যাপ ভারতে বহুল প্রচলিত। ফলে বেশির ভাগ অ্যাপেই অনেক বড় বিনিয়োগ রয়েছে চিনা সংস্থার। চীনের অভিযোগ, চীনের সাথে কোনো রকমের আলোচনা না করেই একতরফাভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত।

এই অ্যাপের মধ্যে সবথেকে উল্লেখযোগ্য হলো পাবজি গেমিং অ্যাপ। শুধু ভারতেই এই গেমিং অ্যাপের প্রায় ১৭ কোটি ব্যবহারকারী রয়েছেন। সারা পৃথিবীর ব্যবহারকারী নিরিখে যা প্রায় ২৪ শতাংশ। গত জুন মাস থেকে এ পর্যন্ত ১৭৭টি চীনা অ্যাপের ব্যবহার ভারতে নিষিদ্ধ হয়ে যায়। এর ফলে টেনসেন্ট, আলিবাবার মতো সংস্থা গুলি বড় ধাক্কা খেয়েছে।

ভারতের তথ্যপ্রযুক্তি এবং বৈদ্যুতিন মন্ত্রকের দাবি, এই অ্যাপগুলি দীর্ঘদিন ধরে গ্রাহকের তথ্য চুরি করছে। শুধু তাই নয়, এক দেশের তথ্য অন্য দেশে পাচার করছে বলেও বিভিন্ন সূত্রে খবর পান তারা। তাই, এই অ্যাপগুলি ভারতে নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন ছিল। উল্লেখ্য, এতগুলি অ্যাপ বাতিলের নেপথ্যে রয়েছে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে ভারত-চীন সংঘর্ষ। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় নিজ অবস্থান থেকে সরতে নারাজ চীন। তাই চীনা বিনিয়োগকারী অ্যাপ বাতিল করে দেশের নিরাপত্তা রক্ষার পাশাপাশি, পরোক্ষে চীনকেও চাপে রাখতে চাইছে ভারত।