ভারত-চিন সীমান্তে প্রায় ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে বেজিং, চাঞ্চল্যকর দাবি মাইক পম্পেওর

বেশ কয়েক মাস ধরেই লাদাখ সীমান্তে ভারত-চীন সীমান্ত বিতর্ক অব্যাহত। উভয় রাষ্ট্রের সেনা আধিকারিকদের মধ্যে দফায় দফায় বৈঠকের পরেও এ পর্যন্ত কোনো সমাধান সূত্রে পৌঁছনো সম্ভব হয়নি। উভয় প্রতিবেশী রাষ্ট্রই বর্তমানে সীমান্তে নিজেদের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করে চলেছে। সম্প্রতি আমেরিকার বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও দাবি করলেন, লাদাখ সীমান্ত ইতিমধ্যেই প্রায় ৬০ হাজার সৈন্য মোতায়েন করেছে চীন।

গত মঙ্গলবার, কোয়াড গ্রুপের সদস্য দেশ গুলি অর্থাৎ ভারত, জাপান, অস্ট্রেলিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশ মন্ত্রীরা টোকিওতে একটি বৈঠকের আয়োজন করেন। এশিয়াসহ সারা বিশ্বে শান্তি এবং সৌভ্রাতৃত্ব প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে কোয়াডের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলি কী ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে, সেই সম্পর্কেই এদিনের বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা করেন বিভিন্ন রাষ্ট্রের বিদেশ মন্ত্রীরা। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর।

এদিনের বৈঠকে, ভারত-চীন সীমান্ত বিতর্কের প্রসঙ্গ ওঠে। সেই সময় লাদাখ সীমান্তে চীনের ভারতীয় ভূখণ্ড দখলের প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনা করেন মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেও। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার এশিয়া সফর শেষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে গেছেন মাইক পম্পেও। মার্কিন বিদেশ সচিবের বক্তব্য অনুসারে, ভারতীয় সীমান্তে চীনের আগ্রাসী মনোভাব কোয়াডের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

মার্কিন বিদেশ সচিবের বক্তব্য অনুসারে, লাদাখ সীমান্তের পাশাপাশি দক্ষিণ চীন সাগরসহ এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চল গুলিতে যেভাবে আগ্রাসন চালানোর পরিকল্পনা করছে চীন, তা কোয়াডের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। তিনি আরো বলেছেন, কোয়াডের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির অস্বস্তি বাড়াচ্ছে চীন। এতদিন চীনের আগ্রাসী মনোভাবের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করার জন্য চীনের সাহস আরো বেড়েছে। তবে এবার চীনের আচরণের যোগ্য জবাব দিতে প্রস্তুত কোয়াডের সদস্য দেশ গুলি। এ বিষয়ে আমেরিকা সর্বদাই সাহায্য করবে বলে আশ্বস্ত করেছেন মার্কিন বিদেশ সচিব।