বিধানসভা ভোটের আগেই রাজ্য পুলিশে রদবদল, বদলি হলো ৭০ ইন্সপেক্টরের

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যের প্রায় সব মহলেই জোর প্রস্তুতি চলছে। রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে প্রশাসনিক মহল, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি তুঙ্গে! সম্প্রতি উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন রাজ্যের প্রশাসনিক অধিকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক সেরে গিয়েছেন।রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা নিয়ে তিনি একেবারেই সন্তুষ্ট নন, একথা বৃহস্পতিবারের বৈঠকেই তিনি নিশ্চিত করে দিয়েছেন।

উপ নির্বাচন কমিশনার বঙ্গে আসার পরপরই রাজ্য পুলিশের দপ্তরে ব্যাপক রদবদল ঘটানো হলো। উত্তর এবং দক্ষিণ বঙ্গ মিলিয়ে অন্তত ৭০ জন ইন্সপেক্টরকে বদলি করা হয়েছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতির প্রেক্ষাপটেই ইনস্পেক্টরদের বদলি করা হয়েছে বলেই অনুমান করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, বৃহস্পতিবার রাজ্য পুলিশের তরফ থেকে যে নির্দেশিকা পেশ করা হয়েছে সেখানে জানানো হয়েছে, বিভিন্ন জেলার ওসি থানা গুলিকে আইসি পর্যায়ে উন্নীত করা হয়েছে।

সদ্য বদলির আদেশপ্রাপ্ত ইন্সপেক্টরদের মধ্যে রয়েছেন কুচবিহারের কোতোয়ালি থানার আইসি সৌমজিৎ রায়, যাকে শিলিগুড়িতে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। একইভাবে দক্ষিণ দিনাজপুরের ডিআইবি ইন্সপেক্টর সঞ্জীব বিশ্বাসকে মানিকচকের, ব্যারাকপুরের এসভিএসপির ইন্সপেক্টর জয়ন্ত দত্তকে হেমতাবাদের, কালিম্পং এর ডিআইবি ইন্সপেক্টর গৌতম রায়কে মেটেলি থানার আইসি করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের উপ নির্বাচন কমিশনার রাজ্যে এসে প্রশাসনিক অধিকর্তাদের বলেছেন, যে কোনো ভাবে নির্বাচনের সময়ে রাজ্যের পরিস্থিতি হিংসামুক্ত রাখতেই হবে। যারা সেই দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না, তাদের অবিলম্বে অপসারণ করে দেওয়া হবে। তিনি এও জানিয়েছেন, একুশের বিধানসভা নির্বাচন হিংসামুক্ত পরিবেশে সম্পন্ন করা নির্বাচন কমিশনের কাছে এক বড় চ্যালেঞ্জ স্বরূপ। রাজ্যে আপাতত সেই চ্যালেঞ্জ নেওয়ার তোড়জোড় চলছে।