রাতে বীভৎস মুখ ওয়ালা বেশকিছু ‘ভূত’ ভয় দেখাচ্ছে, বাধ্য হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ প্রৌঢ়া

সম্প্রতি, কলকাতার বাঁশদ্রোণী থানায় ভুতের নামে অভিযোগ দায়ের করলেন এক বৃদ্ধা। বৃদ্ধার অভিযোগ, বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই প্রতিরাতে বীভৎস মুখ ওয়ালা বেশকিছু “ভূত” তাকে ভয় দেখাচ্ছে। তবে এগুলি যে সে ভূত নয়! এই ভূত, যে মানুষ ভূত সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই বৃদ্ধার। কয়েকজন স্থানীয় যুবকের উপরে সন্দেহও করছেন তিনি। এই যুবকেরাই‌ যে রাত বিরেতে ভূত সেজে তাকে বিরক্ত করছে তা বুঝতে পেরেছেন তিনি। স্থানীয় পুলিশ থানায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগও করেছেন বৃদ্ধা।

দক্ষিণ কলকাতার বাঁশদ্রোণী থানা এলাকার বিবেকানন্দ পার্ক এলাকার বাসিন্দা ওই বৃদ্ধা পুলিশকে জানিয়েছেন, নিজের বাড়িতে বর্তমানে একাই থাকতে হয় তাকে। এর আগে তার সঙ্গে একটি পরিবার ভাড়া থাকতো এই বাড়িতে। কিন্তু, বেশ কিছুদিন আগেই তারা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যান। ফলে স্বভাবতই একাকিত্বে ভুগছিলেন বৃদ্ধা। এর সুযোগ নিচ্ছে ওই যুবকেরা। বৃদ্ধার দাবি, বিগত দুই মাস ধরে রাতে তার বাড়ির আশেপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে কেউ।

এদের মধ্যে কেউ আবার বৃদ্ধার বাড়ি সংলগ্ন একটি গাছে উঠে বিভিন্ন রকমের অদ্ভুত এবং ভয়াবহ আওয়াজ করছে। কেউ কেউ জানলায় টোকা মারছে। বৃদ্ধা জানলা খুলে তার বাড়ির বাইরে বীভৎস সব মুখ দেখতে পেয়েছেন। বৃদ্ধার অভিযোগ, কিছু নেশাগ্রস্ত যুবকই রোজ রাতে এমন ভুতুড়ে কান্ড ঘটাচ্ছে। এলাকার অন্যান্য বাসিন্দাদেরও তাই মনে হয়েছে। অনেকেই দাবি করছেন, এর পেছনে কোন প্রোমোটারি চক্র জড়িত থাকতে পারে।

স্থানীয়দের দাবি, বৃদ্ধাকে ভয় দেখিয়ে বাড়ি ছাড়া করতে চাইছে প্রোমোটাররা। যাতে বৃদ্ধার বাড়ি দখল করতে পারে তারা। তাই বিগত দুই মাস ধরে ভুতুড়ে মুখোশ পড়ে তারা প্রতি রাতে বৃদ্ধাকে ভয় দেখিয়ে চলেছে। এর ফলে তার মানসিক চাপ আরও বেড়ে গেছে। ভয়ে রাতে ভালো ঘুম হচ্ছে না। অসাধু চক্রের দৌরাত্ম্যে নাজেহাল বৃদ্ধা এই কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করতে তাই পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। বৃদ্ধার অভিযোগ পেয়ে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে স্থানীয় থানার পুলিশ।