যে কোন সময় যুদ্ধ লাগতে পারে, লালফৌজের উদ্দেশ্যে বার্তা চাইনিজ প্রেসিডেন্টের

বিগত বেশ কয়েক মাস ধরেই ভারত-চীন সীমান্তের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির সদস্যরা। ভারতীয় ভূখণ্ড দখলের লড়াইয়ে মরিয়া চীন। লাদাখের যেকোনো প্রতিকূল পরিবেশে, দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলে টিকে থাকার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে চীনা ড্রাগনের দল। নতুন বছরেও তারা তাদের অবস্থান থেকে অনড়। তার উপর আবার চীনা প্রেসিডেন্ট তথা লাল ফৌজের কমান্ডার ইন চিফ শি জিনপিংও তাদের যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিলেন!

সূত্রের খবর, হংকংয়ের এক বিশিষ্ট সংবাদমাধ্যম “সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট” এর প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, শি জিনপিং সম্প্রতি ভারত-চীন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় ঘাঁটি গেড়ে থাকা চীনা সৈন্যদের যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। লাল ফৌজের উদ্দেশ্যে তার বার্তা, যেকোনো সময় যুদ্ধ বাঁধতে পারে! তাই এখন থেকেই সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে। বলা বাহুল্য, চীনা প্রেসিডেন্টের এহেন বার্তা কার্যত সীমান্ত নিয়ে ভারতের উদ্বেগ বাড়িয়ে দিয়েছে।

চীনা সৈন্যবাহিনীর উদ্দেশ্যে একাধিক পরামর্শ দিয়েছেন চিনা কমান্ডার ইন চিফ। তার বক্তব্য অনুসারে, চীনের সৈন্যবাহিনীকে নিত্য নতুন অস্ত্র ব্যবহারের প্রশিক্ষণ নিতে হবে। শুধু তাই নয়, প্রশিক্ষণের আদব-কায়দাতেও বদল আনতে হবে। প্রয়োজন বুঝলে চীনের বিভিন্ন বাহিনীকে একত্রে প্রশিক্ষণও নিতে হবে। প্রেসিডেন্টের এই বার্তা থেকে স্পষ্ট, ভারতীয় ভূখণ্ড দখলের উদ্দেশ্যে এবার কোমর বেঁধে নামতে চলেছে লাল ফৌজ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, নতুন বছরের শুরুতেই চিনা সৈন্যবাহিনীর ক্ষমতা বৃদ্ধি করেছে সে দেশীয় প্রশাসন। চীনের সেনা আইনে বিশেষ পরিবর্তন আনা হয়েছে। এই আইন বলে দেশের অভ্যন্তরে এবং বাইরেও দেশের স্বার্থ রক্ষার্থে বিশেষ ক্ষমতা পেয়েছে চীনা লাল ফৌজ। আইন কার্যকর হওয়ার পরেই চীনা সৈন্যবাহিনীকে নির্দেশ পাওয়া মাত্র যুদ্ধে নামার প্রস্তুতি নিতে বললেন শি জিনপিং।