আপনার কি কফির প্রতি আসক্তি, থাকুন সাবধানে, হঠাৎ দেখা দিতে পারে নানাবিধ সমস্যা

কফিতে রয়েছে বেশ একটা সাহেবিয়ানা। ব্ল্যাক কফি, মোকা, লাতে, প্রভৃতি উচ্চারণ এর মাধ্যমেই নিজেকে একটা রাজা রাজা বলে মনে হয়। অনেকেরই সকাল বেলায় উঠে এক কাপ ব্ল্যাক কফি না খেলে দিন তাকে তেমন ভাবে শুরু হয় না। কেউ ভাবে কফি না খেলে বুদ্ধি খোলে না। তবে কফি খেলে বেশ শরীরে এনার্জি আসে যেমন মুম্বাইয়ের বেশকিছু পরিচালক নিজের শোয়ে লোককে ডেকে ডেকে কফি খেতে বলেন। চালুক্য বলেছেন অতি সর্বত্র গর্হিতম! অর্থাৎ যেকোন বিষয় নিয়ে যদি তুমি বারবারই করো তাহলে তুমি বিপদে পড়বে। কফির ক্ষেত্রে ও ঠিক তেমনি নিয়ম প্রযোজ্য।

আপনার হয়তো রাতে ভাল ঘুম হয়নি সকালে উঠে এক কাপ কফি খেলে এতে আপনার ব্লাড সুগার অনেকটা মাত্রাতেই বৃদ্ধি পাবে এবং হার্টের সমস্যার আশঙ্কা দেখা দেবে। তবে একটা পরিমাণমতো কফি পান করায় যেতে পারে তবে তার নির্দিষ্ট সময়ে। ব্রেকফাস্ট এর পর হাত কাপ কফি পান করলে আপনার শরীরে কোনো ক্ষতি হবে না। তবে এবার আলোচনা করা যাক কফি থেকে শরীরে কি কি সমস্যা হতে পারে।

১) আপনি যদি আপনার এনার্জি পাওয়ার জন্য এই কফি সাহায্য নেন তাহলে একটা সময় এটা আপনার নেশাতে পরিণত হবে। কফির মধ্যে থাকে ক্যাফিন কিছু মুহূর্তের জন্য রাসায়নিক বিক্রিয়া ঘটায়। কিন্তু এটি খেলে যে আপনার এনার্জি বাড়বে তেমন কোনো গুণ নেই কফিতে।

২) কফির মধ্যে আছে ল্যাক্সেটিভ, যা আপনার পেটের সমস্যা ঘটাতে সাহায্য করে। যদি কখনো দেখেনি যে খাবার হজম হচ্ছে না তাহলে জানবেন এটা কফির প্রভাবেই হচ্ছে। কফি খাওয়া কে নিয়ন্ত্রণে আনুন।

৩) কফি খেলে যে সব সময়ই এনার্জি পারবে এমন নয়। কফি আপনার শরীরে এন্ড্রোজেন হরমোন নিঃসৃত করতে সাহায্য করবে যা আপনাকে উত্তেজিত গা বমি ভাব এবং আপনার হাত পা পর্যন্ত কাঁপতে পারে। এই রকম সমস্যা হলে আপনি অবিলম্বে কফি খাওয়া বন্ধ করুন।

৪) অনেক সময় আমরা রাত জেগে লেখাপড়া বা পড়াশুনা করি। ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক কাপ কফি পান করি। এর ফলে আমাদের ঘুম আসতে দেরি হতে পারে বা মাঝরাতে ঘুম ভেঙে যেতে পারে। এইভাবে অনিদ্রা সমস্যা কাটানোর জন্য ঘুমাতে যাওয়ার তিন চার ঘন্টা আগে কফি পান করা উচিত।

৫) কফি যদি আপনি অতিরিক্ত মাত্রায় সেবন করেন তাহলে আপনাকে অনেকক্ষণ জাগতে সাহায্য করবে। এর ফলে আপনার হৃদযন্ত্র বৃদ্ধি পাবে সাথী রক্তচাপও অনেক গুণে বেড়ে যাবে। স্বভাবতই বোঝাই যাচ্ছে কফি পান করলেও লিমিট রেখেই তা ব্যবহার করুন। অতিমাত্রায় কফি সেবন করলে তা শরীরে বিপরীত প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।